স্ত্রীর মাথা ন্যাড়া করা সেই স্বামী জেলহাজতে

জেলা প্রতিনিধি, পটুয়াখালী: পটুয়াখালীতে যৌতুকের দাবি মেটাতে না পারায় তাহমিনা বেগম (৩৫) নামের এক গৃহবধূকে নির্যাতন ও মাথা ন্যাড়া করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় স্বামী রফিকুল ইসলামকে (৪২) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রবিবার সন্ধ্যার দিকে তাকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়। রাতেই রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বাদী হয়ে পটুয়াখালী সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন স্ত্রী তাহমিনা বেগম। অভিযুক্ত রফিকুল ইসলাম সদর উপজেলার ইটবাড়িয়া ইউনিয়নের ঘোপখালী গ্রামের ফজলুল হক হাওলাদারের ছেলে। তিনি পেশায় একজন গ্রাম্য পশু চিকিৎসক।

গৃহবধূ তাহমিনা বেগম অভিযোগে জানান, ১৭ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। তাদের দু’টি ছেলে সন্তানও রয়েছে। বিয়ের পর থেকে স্বামী যৌতুকের জন্য তাকে চাপ দিতে থাকেন। এমনকি বাবার বাড়িতে তার যে সম্পত্তি রয়েছে তাও স্বামীকে দেয়ার জন্য চাপ দিতেন। কিন্তু তিনি তাতে রাজী না হওয়ায় স্বামী প্রায়ই তাকে মারধর ও নানা ধরনের নির্যাতন করতেন। ছেলে দু’টির মুখের দিকে তাকিয়ে তিনি সব নির্যাতন মুখ বুঁজে সহ্য করেন তিনি।

শনিবার বিকালে যৌতুক ও বাপের বাড়ির সম্পত্তি দেয়ার জন্য স্বামী তাকে বেদম মারধর করেন এবং মাথা ন্যাড়া করে দিয়ে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন।

পরে স্থানীয় লোকজন গৃহবধূকে পটুয়াখালীর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ব্যাপারে পটুয়াখালী সদর থানার ওসি আখতার মোর্শেদ জানান, নির্যাতিতা তাহমিনার স্বামী রফিকুল ইসলামকে রবিবার সন্ধ্যায় গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার আদালতের মাধ্যমে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

স্বাআলো/এসএ