হাসপাতালে সেবার মান ও আন্তরিকতা বাড়াতে আহ্বান

ডেস্ক রিপোর্ট: বিদেশ যাওয়ার জন্য করোনা পরীক্ষার ভোগান্তি কমানোর জন্য সময় নির্ধারণে সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তাছাড়া হাসপাতালে সেবার মান এবং আন্তরিকতা বাড়াতেও আহ্বান জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ের সময় একথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বিদেশগামীদের করোনা পরীক্ষা নিয়ে এখনও কিছুটা বিভ্রান্তি রয়ে গেছে জানিয়ে বলেন, অনেকেই টিকিট জমা দিয়ে ৪৮ থেকে ৭২ ঘণ্টা আগে নমুনা দিচ্ছেন পরীক্ষার জন্য, আবার কেউ কেউ ২৪ ঘণ্টা আগে রিপোর্ট পাচ্ছেন, কেউ পাচ্ছেন না। আবার কারও কারও রেজাল্ট পজিটিভ আসছে। তাতে শেষ মুহূর্তে যাত্রা বাতিল করতে হচ্ছে ৷ এতে তাদের আর্থিক ও মানসিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এছাড়া নমুনা গ্রহণ ও ফলাফল দেওয়ায় সমন্বয়হীনতা রয়ে গেছে। তাই বিদেশগামীদের ভোগান্তি কমাতে একটি যৌক্তিক সময় নির্ধারণে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

তিনি বলেন, করোনার নমুনা পরীক্ষা করাতে অনেকেরই অনীহা। কোনো কোনো হাসপাতালে সেবার মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। পরীক্ষার ফি নির্ধারণ, নমুনা দিতে দীর্ঘ লাইন, ফলাফল পেতে কালক্ষেপণ ইত্যাদি কারণে পরীক্ষায় অনীহা বাড়ছে। রোগীদের আস্থা ফিরিয়ে আনতে সেবার মান ও আন্তরিকতা বাড়াতে হবে।

এর আগে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাস সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এসময় রীভা গাঙ্গুলি দাস বলেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন অধিকতর উষ্ণ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বাংলাদেশে অবস্থানকালে এবং সড়ক অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পগুলো এগিয়ে নিতে ভারতের হাইকমিশনারকে ধন্যবাদ জানান।

ব্রিফিংয়ে ওবায়দুল কাদের বিএনপির সমালোচনা করে বলেন, প্রতিটি বিষয়ে সরকারের সমালোচনা আর মিথ্যাচার করা বিএনপির চিরায়ত ঐতিহ্য।

এবারের বন্যা না-কি সরকারের নতজানু পররাষ্ট্রনীতির ফল বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রাকৃতিক দূর্যোগ নিয়েও মিথ্যাচার ও অপরাজনীতির বৃত্ত থেকে বিএনপি বেরিয়ে আসতে পারেনি। তিনি পাল্টা প্রশ্ন করে মির্জা ফখরুলের কাছে জানতে চান, তাহলে কী সম্প্রতি চীন, জাপান ও আসামের বন্যাও নতজানু পররাষ্ট্রনীতির ফল? বিএনপির আমলে যে বন্যা হয়েছিল, তাও কী নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণে হয়েছিল?

স্বাআলো/জি