কলেজ অধ্যক্ষের নেতৃত্বে বরিশালে বাসদ কার্যালয়ে হামলা

বরিশাল: বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) বরিশাল কার্যালয়ে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসময় ৬ জন আহত হয়েছেন।নগরীর ফকির বাড়ি রোডস্থ বাসদের অস্থায়ী কার্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে করোনা মোকাবেলায় জনকল্যানমুখী কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছিলেন দলটির নেতৃবৃন্দ। সম্প্রতি কার্যালয় ভাড়া নিয়ে জটিলতার সৃষ্টি হয়। যার সূত্র ধরে আজ বুধবার সকাল থেকে কয়েক দফায় হামলা ও মারধরের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর গাজী আক্তারুজ্জামান হিরু জানিয়েছেন, ফকিরবাড়ি একটি আবাসিক এলাকা। এখানে করোনা সংক্রান্ত কোন ধরনের কর্মকান্ড করতে আর দেয়া হবে না। ওই কার্যালয়ে বসে বাসদের নেতৃবৃন্দ করোনার বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করায় মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বাসদ যত মহৎ কাজই করুক; এলাকার মানুষ চান না তারা এখানে অবস্থান করে এসব করুক।

জেলা বাসদের আহ্বায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন অভিযোগ করে বলেন, মাতৃছায়া কিন্ডারগার্টেনের পরিচালক সুজিত দেবনাথ সাবলেট রুম ভাড়া বাবদ অগ্রিম ৫ লাখ টাকা দাবি করেন। এই টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় সকালে পানি সরবরাহের সংযোগ লাইন কেটে দেয়া হয়। এতে বাঁধা দেয়ায় বাসদের লোকজনের ওপর হামলা চালান তার লোকজন।

তবে বাড়ির ভাড়াটিয়া সুজিত কুমার দেবনাথ বলেন, ডা. মনিষাকে বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চের অফিস করার জন্য একটি কক্ষ ভাড়া দিয়েছিলাম। সে অবৈধভাবে বিনা ভাড়ায় ওই বাড়ির মধ্যে নানা কার্যক্রম চালাচ্ছে। ভাড়া চাওয়ায় উল্টো তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ করা হচ্ছে। হামলা নয়, তাকে অবৈধভাবে আমার ভাড়া নেয়া বাড়িতে ঢুকতে দেয়া হয়নি।

ওসি নুরুল ইসলাম জানিয়েছেন, পরিস্থিতি এখন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে। উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বাড়ি ভাড়া নিয়ে সুজিত দেবনাথের খানায় অভিযোগ দাখিল এবং মনীষা চক্রবর্তীর পাল্টা সংবাদ সম্মেলনকে ঘিরে বুধবার সকালে বাসদ কার্যালয়ের পানি ও মূল গেট আটকে দেন সুজিত কুমার দেবনাথ। প্রতিবেশি নজরুল ইসলাম খান বিষয়টি জানতে চাইলে সকালে তাকে মারধর করেন সুজিত দেবনাথ।

এই সংবাদ জানতে পেরে বাসদের আহবায়ক ইমরান হাবিব রুমন ও সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী দলীয় নেতাকর্মী নিয়ে কার্যালয় এলাকায় আসেন। বিপরীতে সুজিত কুমার দেবনাথ মুঠোফোনে ডেকে কয়েকশ’ লোককে জড়ো করেন। এ সময়ে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি ও মারধরের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে আহতদের নাম এখনো জানা যায়নি।

ফকিরবাড়ির ওই বাড়িটি মরহুম মুক্তিযাদ্ধা হাসান ইমাম চৌধুরীর। তার সন্তানদের কাছ থেকে বাড়িটি ভাড়া নিয়ে মাতৃছায়া শিশু কিন্ডারগার্ডেন চালু করেন বরিশাল সিটি কলেজের অধ্যক্ষ সুজিত কুমার দেবনাথ। পরবর্তীতে বাড়ির ভিতর সুজিত তার নিকটাত্বীয়কে ল-চেম্বার হিসাবে একটি কক্ষ ভাড়া দেন। অপরদিকে ডা. মনিষা চক্রবর্তী বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চ সংগঠনের নামে সুজিত কুমার কাছ থেকে আরেকটি কক্ষ ভাড়া নেন। বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চের পাশাপাশি সেখানে মৌখিক অনুমতি নিয়ে বাসদের কার্যালয় পরিচালনা করতেন ডা. মনীষা ও ইমরান হাবিব রুমন।

তবে মার্চ মাসে দেশে করোনা প্রভাব দেখা দিলে বাসদের কার্যালয়ে করোনা মোকাবেলায় জনকল্যানমুখি কর্মকান্ড পরিচালনা শুরু করা হয়। করোনা রোগীদের জন্য বিনামূল্যে এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, রেশন পদ্ধতিতে দরিদ্রদের জন্য মানবতার বাজার, মানবতার পাঠশালা প্রভৃতি কর্মকান্ড প্রশংসিত হয়। বিষয়টি সহজভাবে মেনে নিতে পারছিলেন না সুজিত কুমার দেবনাথ। তিনি অভিযোগ করেন, অনুমতি না নিয়ে বা ভাড়া না দিয়ে বাসদের কার্যক্রম পরিচালনা করছিল দলটি। আর এখানে করোনা মোকাবেলায় বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করায় এলাকার মানুষ আতঙ্কে রয়েছে।

এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ দেখা দিলে তা মারামারিতে রূপ নেয়। শেষে পুলিশি তত্বাবধায়নে দুপুরে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

সন্ধ্যায় বাসদের সদস্য সচিব ডা. মনিষা চত্রবর্তী জানিয়েছেন, উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মোক্তার হোসেনের কক্ষে আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে মানবিক ও সামাজিক কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য আগামী একমাস পর্যন্ত আমরা ওই কার্যালয়টি ব্যবহার করবো।

ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কোতয়ালীর উপ-সহকারী পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ রাসেল, কোতোয়ালি থানার ওসি নুরুল ইসলাম, ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গাজী আখতারুজ্জামান হিরু, বাসদ জেলা আহবায়ক ইমরান হোসেন রুমন ও সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী। যদিও এর আগে মানবিক বিবেচনায় একমাসের সময় চেয়েছিল বাসদ নেতৃবৃন্দ।

স্বাআলো/ডিএম