দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে ৫ শতাধিক গাড়ির অপেক্ষা

রাজবাড়ী: কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়ার ঘাট ভেঙে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবে চলছে না ফেরি। ফলে গাড়ির চাপ বাড়ছে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে। নদী পারের অপেক্ষায় রয়েছে প্রায় ৫ শতাধিক যানবাহন। এ সকল যানবাহনগুলোকে ফেরিতে উঠতে প্রায় ৮-১০ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে সড়কে।

অপেক্ষমাণ যানবাহনের মধ্যে পণ্যবাহী ট্রাকের সংখ্যাই বেশি। তাছাড়া যাত্রীবাহী বাসও রয়েছে প্রায় দেড় শতাধিক। তবে ব্যক্তিগত ছোট গাড়ির কোনো চাপ নেই। ব্যক্তিগত ছোট গাড়িগুলো সরাসরি ফেরিতে উঠে যাচ্ছে।

শুক্রবার সকালে সরেজমিনে দৌলতদিয়া ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, নদী পারের জন্য দৌলতদিয়ার ৩ নং ঘাট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে প্রায় দেড় শতাধিক যাত্রীবাহী বাস অপেক্ষা করছে।

অন্যদিকে দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের গোয়ালন্দ মোড় হতে রাজবাড়ীর দিকে কল্যাণপুর বাজার ছাড়িয়ে সাড়ে ৩ কিলোমিটার পর্যন্ত প্রায় সাড়ে তিনশ পণ্যবাহী ট্রাক অপেক্ষা করছে নদী পারের জন্য।

ফেরির দেখা পেতে এ সকল যানবাহনগুলোকে ৮-১০ ঘণ্টা সময় ধরে অপেক্ষা করতে হচ্ছে সড়কে। দীর্ঘ সময় সড়কে অবস্থান করার কারণে নানা সমস্যায় পড়েছেন ট্রাক চালক ও শ্রমিকরা। খাদ্য সংকটসহ টয়লেট ও পানির ব্যবস্থা না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন তারা।

এদিকে যানবাহন ও যাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য জেলা পুলিশ অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করেছে। সমস্ত সড়ক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

সাতক্ষীরা থেকে ছেড়ে আসা ট্রাক চালক বুলু হাওলাদার বলেন, বৃহস্পতিবার বিকালে এখানে এসেছি। এখনো ঘাট থেকে অনেক দূরে। জানি না কখন নদী পার হতে পারব।

এ সময় তিনি আরও বলেন, আমরা যেখানে অবস্থান করছি সেখানে কোনো খাবার ব্যবস্থা নেই। নেই টয়লেট ও পানির ব্যবস্থা। কর্তৃপক্ষের উচিত এ সকল জায়গাতে ভ্রাম্যমাণ টয়লেটের ব্যবস্থা করা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট শাখা ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ্ রনি বলেন, কাঁঠালবাড়ী- শিমুলিয়া নৌরুটের ঘাট ভেঙে যাওয়ায় এবং নদীতে স্রোতের অতিরিক্ত বেগ থাকায় ফেরি চলাচলে ব্যাহত হচ্ছে। যার কারণে দৌলতদিয়া প্রান্তে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ রয়েছে। তবে বর্তমান দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে মোট ১৬টি ফেরি চলাচল করছে।

রাজবাড়ী পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, ঘাট এলাকাতে যাতে কোনো যাত্রী বা যানবাহনের চালক ও শ্রমিকদের জানমালের ক্ষতি না হয় সেজন্য পুরো ঘাট আমাদের নজরদারিতে রয়েছে। যানবাহনের চাপ থাকার কারণে অতিরিক্ত পুলিশও মোতায়ন করা হয়েছে।

স্বাআলো/জি