অন্ধকারে মিথিলা যেন জীবনানন্দের বনলতা সেন

সব পাখি ঘরে আসে— সব নদী— ফুরায় এ-জীবনের সব লেনদেন; থাকে শুধু অন্ধকার, মুখোমুখি বসিবার বনলতা সেন। এই কবিতার প্রাসঙ্গিকতা কোথায়? হয়তো খুঁজে পাওয়া যাবে না। তবে যিনি বলছেন, যিনি উচ্চারণ করছেন কিংবা হৃদয় থেকে উচ্চারণ আবৃত্তি করছেন তাঁর সঙ্গে নিশ্চই প্রাসঙ্গিকতা রয়েছে।

রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা। তার স্বামীর ঘর ওপার বাংলায়। চলমান করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘদিন ঢাকায় ‘আটকা’ পড়েছিলেন মিথিলা। এরইমধ্যে মেয়ে আইরা তাহরিম খানকে সাথে নিয়ে বিশেষ ব্যবস্থায় সড়ক পথে কলকাতায় গিয়েছেন মিথিলা। মিথিলাকে নিতে স্বামী সৃজিত মুখার্জি বেনাপোল স্থলবন্দরের নিকট ভারতীয় সীমান্ত পেট্রাপোলে চলে আসেন। বলা যায় দীর্ঘদিনের পরে এই মিলন মেলা।

স্বাভাবিকভাবেই জীবনানন্দকে তিনি ধারণ করতে পারেন মিথিলা, বলতেই পারেন— সব পাখি ঘরে আসে— সব নদী— আর সঙ্গে ঘরে ফেরার ঘরের ছবি। মিথিলার এই কাব্যের সঙ্গে পোস্ট করা ছবিতে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন ৩৮ হাজার ফেসবুক ব্যবহারকারী। এছাড়াও প্রচুর মন্তব্য করেছেন নেটিজেনরা।

তবে স্বাভাবিকভাবেই এই দেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের একটি অংশ সবখানে যেমন নেতিবাচক মন্তব্য করেন, ঠিক তেমনই মিথিলার এই ছবিতে অনেক নেতিবাচক মন্তব্যও রয়েছে।

শুধু শাড়িতে পরে শরৎচন্দ্র, রবীন্দ্র নাথ আমলের কিংবা জীবনানন্দের কল্পনার অনুকরণে বনলতার তোলা এই ছবি মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে যেমন তার অনেকাংশই ছবিটিকে পছন্দের তালিকায় নিয়েছেন। যদিও জানা যাচ্ছে না আসলে কেন তোলা এই ছবি, নাকি নতুন কোনো সিনেমা, ওয়েব সিরিজে অভিনয় করতে যাচ্ছেন স্বামী সৃজিতের হাত ধরেই— এমনটাও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

স্বাআলো/এসএ