নড়াইলের জামাই প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলে শোকের ছায়া

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি নড়াইলের জামাই প্রণব মুখার্জীর মৃত্যুর সংবাদে নড়াইলে বিভিন্ন মহলে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি নড়াইলের জামাই প্রণব মুখার্জির মুত্যুতে নড়াইল-১ আসনের সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খান নিলু, পৌর মেয়র জাহাঙ্গির বিশ্বাস, নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এনামুল কবির টুকু, সাধারণ সম্পাদক শামিমুল ইসলামসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শোক জানিয়ে তার আত্মার শান্তি কামনা করা হয়েছে।

ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি ২০১৩ সালের ৩ মার্চ বাংলাদেশে ৩ দিনের সফরে আসেন। ৫ মার্চ মঙ্গলবার শেষ দিনের কর্মসূচির মধ্যে ছিল শ্বশুরবাড়ি নড়াইলের ভদ্রবিলা গ্রামে বেড়ানো। ২০১৩ সালের ৫ মার্চ সকাল সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে বাংলাদেশ বিমানের একটি হেলিক্যাপ্টারে করে তিনি ও তার অসুস্থ স্ত্রী শুভ্রা মুখার্জী এবং এক কন্যাকে সাথে নিয়ে নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অবতরণ করেন। রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানিয়েছিলেন নড়াইল-১ আসনের সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি, নড়াইল-২ আসনের তৎকালীন সংসদ সদস্য এসকে আবু বাকের, তৎকালীন নারী সংসদ সদস্য ফরিদা রহমান, ফজিলাতুন নেসা বাপ্পি, তৎকালীন নড়াইল জেলা প্রশাসক জহুরুল হক, তৎকালীন জেলা পরিষদের প্রশাসক ও বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, তৎকালীন পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলামসহ অনেকে।

তারপর, তিনি নড়াইলের মেয়ে স্ত্রী অসুস্থ শুভ্রা মুখার্জিকে নিয়ে গাড়ি যোগে ছুটে যান সদরের বাঁশগ্রাম ইউনিয়নের ভদ্রবিলা গ্রামে শুভ্রা মুখার্জির পৈত্রিক ভিটায় তার শ্বশুরালয়ে। নড়াইলবাসী তাকে জামাইবরণ করে জামাইকে ধান, দূর্বাঘাস, মঙ্গলপ্রদীপ, শঙ্খ এবং উলুধ্বনি দিয়ে বরণ করে নেন শ্বশুরালয়ের সদস্যরা। পরে নড়াইলের বিখ্যাত ক্ষিরের সন্দেশ, নারকেলের নাড়ু, ডাব, দেশি বরই ও কলা দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়।

স্বাআলো/এসএ