প্রশাসনে আসছে নতুন মুখ

চলতি বছরের অক্টোবর থেকে আগামী বছরের এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত সরকারের অন্তত ২০ জন সচিব অবসরে যাবেন। এই সময়ের মধ্যে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মেয়াদও শেষ হবে আরো দুই সিনিয়র সচিবের। ফলে প্রশাসনের শীর্ষ পদগুলোতে আসবে নতুন মুখ। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘদিন প্রশাসনে প্রভাব বিস্তার করা ক্যাডার সার্ভিসের বড় দুই ব্যাচ ’৮৪ ও ’৮৫-এর কর্মকর্তাদের আধিপত্য শেষ হবে। যদিও ইতোমধ্যে এই দুই ব্যাচের বেশির ভাগ কর্মকর্তাই অবসরে চলে গেছেন। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, আগামী ৭ অক্টোবর থেকে আগামী বছরের ৩ এপ্রিল পর্যন্ত অবসরোত্তর

পিআরএল-এ যাবেন সরকারের ২০ জন সচিব। তাদের মধ্যে ’৮৪, ’৮৫ ও ’৮৬ ব্যাচের কর্মকর্তা রয়েছেন। আগামী ৭ অক্টোবর পিআরএল-এ যাবেন বিসিএস অষ্টম ব্যাচের কর্মকর্তা ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব নূর-উর-রহমান। ১৬ অক্টোবর পিআরএল এ যাবেন কৃষি সচিব নাসিরুজ্জামান। তিনি ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা। ১৬ অক্টোবর চাকরির মেয়াদ শেষ হচ্ছে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) শামীমা নার্গিসের। তিনি ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা। ৩১ অক্টোবর অবসরে যাবেন ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসাইন। ১৫ নভেম্বর পিআরএল এ যাবেন অষ্টম ব্যাচের কর্মকর্তা ও বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমেদ। ২৮ নভেম্বর চাকরি শেষ হচ্ছে তথ্য সচিব কামরুন নাহারের। আগামী ১৭ ডিসেম্বর অবসরে যাবেন দিলওয়ার বখ্ত। ’৮৪ ব্যাচের এই কর্মকর্তা বর্তমানে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সচিব হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। ৩০ ডিসেম্বর চাকরি থেকে বিদায় নেবেন ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা। ৩১ ডিসেম্বর চাকরির মেয়াদ শেষ হচ্ছে দুই সচিবের। এদের মধ্যে একজন হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ও ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা ড. আহমদ কায়কাউস। অন্যজন ভূমি সচিব একই ব্যাচের মাক্ছুদুর রহমান পাটোয়ারী। আগামী বছরের ৪ জানুয়ারি চাকরি শেষ হচ্ছে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব অষ্টম ব্যাচের কর্মকর্তা আলী নূরের। ৫ জানুয়ারি অবসরে যাবেন পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) আবুল কালাম আজাদ। তিনি ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা। ১২ জানুয়ারি অবসর নিচ্ছেন জ্বালানি ও বিদ্যুৎ গবেষণা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান (সচিব) ’৮৫ ব্যাচের সুবীর কিশোর চৌধুরী।

১৪ জানুয়ারি অবসরে যাবেন পরিকল্পনা কমিশনের সচিব ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা আসাদুল ইসলাম। ২ ফেব্রুয়ারি চাকরির মেয়াদ শেষ হচ্ছে সিনিয়র সচিব আলমগীরের। ’৮৪ ব্যাচের এই কর্মকর্তা বর্তমানে নির্বাচন কমিশনে রয়েছেন। ’৮৫ ব্যাচের আরেক কর্মকর্তা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এস এম জিয়াউল আলমের চাকরির মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৪ ফেব্রুয়ারি। ১৫ ফেব্রুয়ারি অবসরে যাবেন পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) ’৮৫ ব্যাচের জাকির হোসাইন আকন্দ। ২৮ ফেব্রুয়ারি চাকরির মেয়াদ শেষ হচ্ছে নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী রওশন আক্তারের। একই দিনে অবসরে যাবেন ভূমি আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান (সচিব) বেগম উম্মুল হাছনা। দুজনই ’৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা। ৩ মার্চ অবসরে যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সেবা সুরক্ষা বিভাগের সচিব শহিদুজ্জামান। প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, আগামী ছয় মাসে ২০ জনেরও বেশি কর্মকর্তা অবসরে যাওয়ার ফলে নতুন কর্মকর্তারা সচিব হওয়ার সুযোগ পাবেন। এতে প্রশাসনের কাজেও গতি বাড়বে।

স্বাআলো/এসএ