কাতার প্রবাসী আদম ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারসহ নানা অভিযোগ

29

বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলায় কাতার প্রবাসী ইমদাদুল হক আকন নামের একজন কতিথ আদমব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে টাকা পাচারসহ বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনিক হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ক্ষতিগ্রস্থরা।

মিজানুর রহমান নামের অপর একজন কাতার প্রবাসী অভিযোগ করে বলেন, শরণখোলা উপজেলার মালিয়া গ্রামের মৌলভী আঃ হামিদ আকনের ছেলে হাফেজ মাওলানা ইমাদুল হক আকন দীর্ঘদিন যাবৎ কাতারের দোহায় আলমিরা মসজিদে মাসিক বেতনে ক্লিনার পদে কর্মরত রয়েছেন। এখানে চাকুরীর সুবাদে তিনি দেশ থেকে বিভিন্ন সমাজ বিরোধী লোকজনকে এনে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছেন। আর ওই সিন্ডিকেট চক্রের সদস্যরা দেশ থেকে মোটা অংকের বেতনের প্রলোভন দিয়ে অনেক যুবককে নিয়ে কাতার হয়ে সিরিয়া ও আরাকানে পাচার করেছেন এমনকি প্রতি তিন মাস পর পর তারা ওইসব দেশে লোক পাচার করে বলে জানান। সম্প্রতি শরণখোলা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ৮/১০ জন যুবককে ৫৬ লাখ টাকার বিনিময়ে কাতারে নিয়ে প্রতিশ্রুতি বেতন না দিয়ে হয়রানি করছেন এমনকি কেউ কেউ কাজ না পেয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন পার করছেন বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

উক্ত ইমাদুল কাতারের দোহায় বসে গ্রামীনফোনসহ বিভিন্ন ফোন কোম্পানীর লাইন হ্যাক করে বাংলাদেশে অবৈধভাবে ফোনালাপ ব্যবসা চালিয়ে হাজার হাজার ডলার আয় করছে। এ ছাড়া দেশে বিভিন্ন স্থানে মসজিদ মাদরাসা বানানোর কথা বলে কাতারের ধনাঢ্য ব্যক্তিদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা এনে সে টাকা আত্মসাৎ করা হচ্ছে। সামান্য ক্লিনারের চাকুরী করে অঢেল টাকা, ঢাকায় একাধিক বাড়ি, বিপুল জমিজমার মালিক বনে যাওয়ায় সচেতন মহল প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন এতো টাকা পয়সা সম্পত্তির উৎস কি?

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, ঢাকার নবাবপুর ইসলামী ব্যাংক, সদরঘাট ইসলামী ব্যাংক, উত্তরা ইসলামী ব্যাংক, জিনজিরা ব্রাক ব্যাংক, খিলক্ষেত এনসিসি ব্যাংকের মাধ্যমে হুন্ডির টাকা পয়সা লেনদেন করে থাকে।

তদন্ত হলে এর প্রমাণ মিলবে বলে সূত্রটি দাবি করেছে। এ ছাড়া ঢাকা হাজী ক্যাম্প ইসলামী ব্যাংকে তার বিপুল অংকের অর্থ রয়েছে বলে সূত্রটি জানায়।

ঢাকার খিলক্ষেতের নালাপাড়ায় খ-১০০/৬এ হোল্ডিংয়ে রয়েছে ইমাদুলের আলীশান ৮তলা বাড়ি। তার এসব কাজে দেশে সহযোগী হিসেবে কাজ করছে তার স্ত্রী জুবাইদা বেগম রুমা, ভাই মাওলানা আমিনুল ইসলাম মাহমুদী, শ্যালক ইমরান হোসাইন ইলিয়াস প্রমূখ।

ইমরানের বিরুদ্ধে ঢাকার উত্তরা থানায় প্রতারনা সহ অন্যান্য অপরাধের ফৌজদারী মামলা রয়েছে বলে জানায় ওই সূত্রটি।

এসব অভিযোগের বিষয়ে কাতারের দোহায় ইমাদুল হকের ০০৯৭৪৬৬১২ নম্বর মোবাইল ফোনে একাধিকবার কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

স্বাআলো/এসএ