রায়পুর স্কুল এন্ড কলেজের প্রভাষক অমলেন্দুর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত

যশোর: নানা অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া বাঘারপাড়া উপজেলার রায়পুর স্কুল এন্ড কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক অমলেন্দু বিশ্বাসের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি। এবার তাকে স্থায়ী বরখাস্তের অনুমতির জন্য আপীল এ্যান্ড আরবিট্রেশন বোর্ডে আবেদন করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানের গভার্নিং বডির সভাপতি বিল্লাল হোসেন দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এছাড়াও একমাস আগে দুর্নীতিসহ নানা অপরাধে প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ কামরুজ্জামান জামাতকেও স্থায়ী বরখাস্তের জন্য আপীল এন্ড আরবিট্রেশন বোর্ডে আবেদন করা হয়।

তিনি জানান, প্রভাষক অমেলেন্দুর বিরুদ্ধে ২০১৮ সালে ১০ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে বাড়িতে প্রাইভেট পড়ানোর সুযোগে ওই ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক, প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের অহেতুক মারপিট ও এইচএসসি পরীক্ষা থেকে বঞ্চিত, গভার্নিং বডিকে অসম্মান, শিক্ষকদের মধ্যে গ্রুপিং তৈরী, শিক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন দপ্তরে মিথ্যা তথ্য সরবরাহের অভিযোগ উঠে ।

এসব অভিযোগ আসে গভানিং বডির কমিটির কাছে। তার জেরে গত ৩১ আগস্ট ও ১৩ সেপ্টেম্বর তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়। কিন্তু তার জবাব দেন না অমলেন্দু। পরে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

একই সাথে হাসান জাকীকে আহবায়ক, ইকবল হোসেন ও জসিম উদ্দিনকে সদস্য করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। গত ২৭ অক্টোবর  প্রভাষক অমলেন্দু বিশ্বাসের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি। এবার  তাকে স্থায়ী বরখাস্তের অনুমতির জন্য আপীল এ্যান্ড আরবিট্রেশন বোর্ডে আবেদন করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, এরআগে নানা রকম দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে অধ্যক্ষ কামরুজ্জামান জামাতকে প্রথমে শোকজ করা হয়।

অভিযোগের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, বিভিন্ন খাতওয়ারী অনিয়ম, দুর্নীতি, গভর্নিং বডির অবমাননা, শিক্ষক শিক্ষার্থী মধ্যকার বিশৃংখলা সৃষ্টি, সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে নিজের ইচ্ছে মত প্রতিষ্ঠান পরিচালনা, প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি সাধন, জাল জালিয়াতি, সরকারী প্রকল্পের অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতিষ্ঠান থেকে বই চুরি। শোকজের সঠিক জবাব না দেয়ায় ওইসব দুর্র্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগের প্রেক্ষিতে অধ্যক্ষ কামরুজ্জামান জামাত কে সাময়িক বরখাস্ত করে  তদন্ত কমিটি করা হয়। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে অভিযোগগুলো প্রমাণিত হওয়ায় তাকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করে অনুমোদনের জন্য শিক্ষাবোর্ডের আপীল এ্যাড আরবিট্রেশন বোর্ডে পাঠানো হয়।

স্বাআলো/আরবিএ