শিশুর স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধির সহজ ৫ উপায়

স্মৃতিশক্তি তুখোড় হলে অনেককিছুই জয় করা সহজ হয়ে যায়। স্মৃতি শক্তিশালী হলে নতুন জিনিস শিখতে এবং মুখস্ত করা সহজ হয়। এটি শিশুকে স্কুলে আরো ভালো পারফরম্যান্স করতে, অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করতে এবং প্রয়োজনীয় জীবন দক্ষতা তৈরি করতে সহায়তা করে।

শক্তিশালী স্মৃতি নিয়ে আমরা জন্ম নেই না। অন্য যেকোনো দক্ষতার মতো এটিও বিভিন্ন উপায়ে অর্জিত হয় এবং যত বেশি অনুশীলন করবেন ততই উন্নত হবে। শিশুর স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করার জন্য কিছু কৌশল:

১.মেডিটেশন
মেডিটেশন শুধু বড়দের জন্য নয়। এটি শিশুদের জন্য একইভাবে কাজ করে। কীভাবে ধ্যান করতে হয় তা আপনার শিশুকে অল্প বয়সে শেখান। এতে করে ভালো অভ্যাস তৈরি হয়, যা তাদের দীর্ঘকালীন উপকারে আসে। মেডিটেশন শিশুকে কেবল শান্ত করে না, পাশাপাশি স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।

২.শরীরচর্চা
শরীরচর্চা করা আরেকটি অভ্যাস যা প্রত্যেকের প্রতিদিনের কাজের তালিকায় রাখা উচিত। শিশুদের প্রতিদিন শরীরচর্চার অভ্যাস থাকলে আরো ভালো। শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকলে তা মস্তিষ্ককে তীক্ষ্ণ রাখতে এবং তাদের মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

৩.পুষ্টি
সঠিক পুষ্টি ব্যতীত, ভালো স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস অর্জন করা কঠিন। আমাদের ডায়েট মস্তিষ্কসহ শরীরে সঞ্চালিত সমস্ত কার্যক্রমে একটি বড় ভূমিকা পালন করে। স্বাস্থ্যকর ডায়েট মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করতে পারে এবং পরবর্তী জীবনে স্মৃতিশক্তি হ্রাস রোধ করতে পারে। ওমেগা -৩, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফ্ল্যাভোনয়েড সমৃদ্ধ খাবার মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

৪.ডিজিটাল ডিটক্স
বিভিন্ন গ্যাজেটের অত্যধিক ব্যবহার শিশুর মস্তিষ্কের কাঠামো পরিবর্তন করতে পারে। এটি তাদের ঘনত্বের স্তর এবং তথ্য খুব দীর্ঘ সময়ের জন্য ধরে রাখার ক্ষমতা হ্রাস করে। আপনার শিশুর গ্যাজেট ব্যবহারের সময় সীমাবদ্ধ করুন। এর পরিবর্তে তাদের
বই পড়া এবং অন্যান্য বহিরঙ্গন ক্রিয়াকলাপে জড়িত হতে উৎসাহিত করুন।

৫.শেখা এবং শেখানো
বলা হয়ে থাকে যে, আপনি যদি কিছু সত্যই বুঝতে পেরে থাকেন তবে অন্যের কাছে এটি ব্যাখ্যা করা সহজ। আপনার সন্তানের সাথে এই কৌশলটি ব্যবহার করুন। যখন তারা কোনো নতুন বিষয় শেখে, তাদের বা তাদের ছোট ভাইবোনকে শেখাতে বলুন। এটি তাদের তীক্ষ্ণ করবে এবং তাদের দ্বিধা পরিষ্কার করবে।

স্বাআলো/এস