শনিবার মুন্সীগঞ্জের মাটি স্পর্শ করবে পদ্মা সেতু

তিনবছর আগে শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্ত থেকে পদ্মা সেতুর স্প্যান যুক্ত হওয়া শুরু হয়েছিল, তা এখন শেষ পর্যায়ে। প্রায় সাড়ে ৫ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে পদ্মা সেতুর স্প্যান কাঠামো পৌঁছে যাচ্ছে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে। সেতুর ৩৮তম স্প্যান আগামীকাল শনিবার যোগ হবে বলে জানিয়েছে চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি ।

এরপর আর বাকি থাকবে মাত্র তিনটি স্প্যান। যেগুলো মাওয়া প্রান্তের খুঁটিগুলোতে বসবে।

৩৮তম স্প্যান যে দুটি খুঁটিতে বসানো হবে তার একটি মাওয়া প্রান্তে তীরের মধ্যে পড়েছে আর অন্যটি নদীতে। অর্থাৎ প্রদর্শিত প্রথম এবং দ্বিতীয় খুটিতে বসছে ৩৮ তম স্প্যান ।

এর আগে জাজিরা প্রান্তেও সবশেষ খুঁটি এবং তার আগের খুঁটিতে তে একইভাবে ৪২তম স্প্যান বসানো হয়েছিল। যার একটি খুঁটি ছিল শরীয়তপুরের মূল ভূখণ্ডে এবং বাকিটি নদীতে।

সেতুর ৩৮তম স্প্যান বসানোর পর ৬ কিলোমিটারের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যাবে পদ্মাসেতু।

মূল সেতুর দৈর্ঘ্য ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার। দুই পাড়ে সংযোগ সড়কের সঙ্গে যুক্ত হওয়া অংশ মিলিয়ে প্রায় সাড়ে ৯ কিলোমিটার লম্বা পদ্মাসেতু।

১৫ ডিসেম্বরের দিকে পদ্মা সেতুর সর্বশেষ স্প্যানটি বসিয়ে দেয়া হবে।

এরপর পদ্মা সেতুর কাজ বাকি থাকবে শুধু সড়কপথ আর তার নিচে রেলপথ টানা। যা এরই মধ্যে শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্ত থেকে শুরু হয়ে প্রায় দুই কিলোমিটার পাড়ি দিয়েছে।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে খুলবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর সবচেয়ে বড় কোনো নির্মাণ অবকাঠামো এবং সমসাময়িক বিশ্বের সবচেয়ে বড় সেতু এটি। পদ্মাসেতু চালু হলে প্রমত্তা নদীর ওপর গাড়ি চলতে দেখা যাবে।

স্বাআলো/এসএ