ধান লুটের আশঙ্কায় রাত জেগে পাহারা

পটুয়াখালীর গলাচিপা চরাঞ্চলে ইতোমধ্যে আমন ধান কাটা শুরু হয়েছে। ধান কাটার মৌসুমকে সামনে রেখে চরাঞ্চলে লাঠিয়াল জোতদার বাহিনী তৎপর হয়ে উঠেছে। ধান কাটার মৌসুম এলেই চরাঞ্চলের কৃষকের চোখেমুখে দেখা যায় আতঙ্কের ছাপ। তাদের কষ্টে অর্জিত সোনালী ফসল আমন ধান নিয়ে। প্রতি বছরই জোতদার লাঠিয়াল বাহিনীর রক্তচক্ষু পড়ে কৃষকের পাকা ধানের ওপর। ধান কাটার মৌসুমে জোতদার লাঠিয়াল বাহিনী রাতারাতি চরের জমির মালিক হয়ে যায়। কেউ ডি, সি, আরের মাধ্যমে কেউবা ভূয়া কাগজ পত্রের মাধ্যমে। এছাড়া উপজেলার চরবিশ্বাস, চরকাজল ইউনিয়নের সাথে ভোলার জমি নিয়ে দীর্ঘ দিন সীমানা বিরোধ থাকায় ঐ এলাকার কৃষকেরাও আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। ধান লুটের আশংকায় কৃষকেরা দিনরাত পালা করে পাহারা দিচ্ছে তাদের কষ্টে অর্জিত ফসল।

ধান কাটার মৌসুমে মামলা, হামলা, সংঘর্ষ, ধান লুটপাটের ঘটনা ঘটে থাকে। চরগুলো উপজেলার সংঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় গোলযোগের সৃষ্টি হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছতে ট্রলার যোগে ৩/৪ ঘণ্টা সময় লাগে। ততক্ষনে লাঠিয়াল বাহিনী ধান কেটে নিয়ে চলে যায়। এরই মধ্যে ভোলার দস্যু বাহিনীর হামলায় একজন কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে আতঙ্কের মধ্যেও ঐ এলাকার কৃষকেরা রাত দিন পালা করে ধান পাহারা দিচ্ছেন।

এ ব্যাপারে চরবিশ্বাস ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল মুন্সি বলেন, ধান পাকলেই লাঠিয়াল বাহিনী তৎপর হয়ে ওঠে। কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়ে।

চরকাজল ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রুবেল মোল্লা বলেন, কৃষকদের কষ্টের ফসল রাতের আঁধারে লাঠিয়াল বাহিনী কেটে নেয়ার পায়তারা চালায়। তাই কৃষরা রাত জেগে সজাগ থেকে ধান পাহারা দেয়।

স্বাআলো/এসএ