বেতাগী পৌরসভা নির্বাচন: মেয়র পদে আ.লীগের মনোনয়ন চান ছয়জন

বরগুনার বেতাগী পৌরসভার নির্বাচন ২৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনে ইতোমধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা তোড়জোড় শুরু করেছেন। সম্ভাব্য মেয়র, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা করোনা পরিস্থিতির কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় এবং খোঁজ খবর নিচ্ছেন পৌর শহরের চায়ের দোকানগুলোতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে নির্বাচনী আলোচনা চলছে।

মেয়র পদে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ থেকে ৬ জন দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বর্তমান পৌরসভার মেয়র এবিএম গোলাম কবির, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নব্বইয়ের এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক ও পৌরসভার দুইবার প্যানেল মেয়র হাদিছুর রহমান পান্না, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য, বরগুনা জেলা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক অর্থ সম্পাদক জেলা পরিষদের সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান নাহিদ মাহমুদ হোসেন লিটু, সাবেক ইউপি সদস্য ও উপজেলা কৃষক লীগ সভাপতি এবং বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আব্দুস সোবাহান হাওলাদার, সাবেক উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি এবং উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান পাভেল এবং উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও বর্তমানে উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান মহসিন।

তফসিল ঘোষণার সাথে সাথে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশায় আওয়ামী লীগ থেকে সম্ভাব্য এ সব সম্ভাব্য প্রার্থীরা কেন্দ্রীয় পর্যায়ে তদবির করছেন।

বর্তমান মেয়র এবিএম গোলাম কবির পৌরসভায় ব্যাপক উন্নয়নের কাজ করেছেন বলে দাবি করে বলেন, তিনি বেতাগী পৌরসভাকে তৃতীয় শ্রেণি থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি এবং দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে প্রথম শ্রেণিতে রুপান্তর করেন।

গত নির্বাচনী ইশতেহারের প্রায় আমি ৮০ শতাংশ কাজ করেছি। বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য, বঙ্গবন্ধ পৌর অডিটোরিয়াম, অত্যাধুনিক ডাক বাংলো, পৌরসভার সকল রাস্তাঘাট, ফায়ার সার্ভিস, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারসহ ব্যাপক উন্নয়নের কাজ করছি। দল ও জনগণ যদি আবার সুযোগ দেয় তবে আমি অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করব।

আরো পড়ুন>>>বরগুনায় চেয়ারম্যানের উপর হামলা, ১৪ জনকে আসামি করে মামলা

পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ হাদিছুর রহমান পান্না বলেন, আমার জনগণের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে। আমি কথায় নয় কাজে বিশ্বাসী । মেয়র নির্বাচিত হলে সকলের সহযোগিতা নিয়ে বেতাগী পৌরসভাকে মডেল ও আধুনিক পৌরসভা করা হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য নাহিদ মাহমুদ হোসেন লিটু বলেন, দলের প্রতি আমার বিশ্বাস রয়েছে আমাকে মূল্যায়ন করে মনোনয়ন দেবে, আমি সব সময় দলের একনিষ্ঠ কর্মী। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে সকলের পরামর্শ ও সহযোগিতা নিয়ে এলাকার ব্যাপক উন্নয়নের কাজ করা হবে।

সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুস সোবাহান হাওলাদার বলেন, আমি রাজ পথের এক সময়ের লড়াকু সৈনিক। কখনো অন্যায়ের কাছে মাথা নত করিনি । বিএনপি’র শাসনামলে গ্রেনেড হামলার সময় বেতাগী উপজেলা থেকে তীব্র প্রতিবাদ করেছি এবং সকল অন্যায় কাজে প্রতিবাদ করেছি। বেতাগীর সকল সামাজিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত ছিলাম। মেয়র নির্বাচিত হলে সহযোগিতার জন্য সকল শ্রেণির মানুষের পাশে থাকব।

সাবেক উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান পাবেল বলেন, দলের প্রতি আমি শ্রদ্ধাশীল। দল যদি আমাকে ভালো মনে করে মনোনয়ন দেয় তবে মেয়র পদে নির্বাচন করবো। আর দল মনোনয়ন না দিলে, দলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক দলীয় প্রার্থীর পক্ষে এক সাথে কাজ করব।

উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান মহসিন বলেন, জাতি, ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল শ্রেণির জনগণের প্রতি পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে। কথায় নয় আমি কাজে বিশ্বাস করি এবং নির্বাচিত হলে মুরব্বীদের যথোপযুক্ত সম্মান প্রতিষ্ঠা করব। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে জনসাধারণের কোন কাজের জন্য বেগ পেতে হবে না।

এ পৌরসভায় ভোটারের সংখ্যা ৯ হাজার ২৭৭ । এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪ হাজার ৫৪২ এবং মহিলা ভোটার ৪ হাজার ৭৩৫ জন।

স্বাআলো/এসএ