মর্গে থাকার ২৫ দিন পর স্বজনরা পেলেন লাকিংমে চাকমার মরদেহ

আইনি জটিলতার কারণে ২৫ দিন ধরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মর্গের হিমঘরে পড়ে থাকা লাকিংমে চাকমার মরদেহ আদালতের নিদের্শে বাবা-মার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। স্বজনদের দাবি, স্বাভাবিক মৃত্যু নয়, লাকিংমেকে হত্যা করা হয়েছে।

আজ সোমবার বিকেলে র‌্যাব সদস্যরা তার মরদেহ বাবা-মার কাছে বুঝিয়ে দেন।

লাকিংমের মরদেহ বুঝে নেবার পর কান্নায় ভেঙে পরেন স্বজনরা। ২৫ দিন ধরে কিশোরী লাকিংমে চাকমার মরদেহ পরেছিল কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে। মূলত তার পরিবার ও কথিত স্বামী মরদেহ দাবি করায় তৈরি হয় জটিলতা। এরপর, আদালত তদন্ত করে মরদেহ হস্তান্তরে দায়িত্ব দেয় র‍্যাবকে।

বিচার চেয়েছে আদিবাসি ফোরামসহ ৮টি সংগঠন। এজন্য শহরে মানববন্ধনও করেন এসব সংগঠনের কর্মীরা।

আরো পড়ুন>>>টেকনাফে পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা নিহত

র‍্যাব বলছে, তাদের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে লাকিংমে অপ্রাপ্তবয়স্ক। শিকার হয়েছে অপহরণের।

এরআগে টেকনাফের আতাউল্লাহ নামে এক যুবক দাবি করে, লাকিংমে পালিয়ে ধর্মান্তরের পর তাকে বিয়ে করেছে। গতমাসে পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করেছে লাকিংমে।

স্বাআলো/আরবিএ

.

Author