কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাই খুন, ৫ ঘণ্টা পর মিললো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর লাশ

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় পৌরসভা নির্বাচনে এক কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাই খুনের ৫ ঘণ্টা পর কুমার নদ থেকে প্রতিপক্ষ কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর হোসেন খান বাবুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার রাত ১টার দিকে উপজেলার দেবতলা-বারইপাড়ায় কুমার নদ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

আলমগীর খান শৈলকুপা পৌরসভার কবিরপুর গ্রামের বাসিন্দা এবং আসন্ন শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনে ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ছিলেন। তিনি পাঞ্জাবি প্রতীক নিয়ে লড়ছিলেন।

শৈলকুপা থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, বুধবার রাত ৮টার দিকে প্রচারণাকালে পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কবিরপুরে কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হোসেন ও আলমগীর হোসেন খানের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

এ সময় শওকত আলীর ছোট ভাই লিয়াকত আলী বল্টুসহ ছয়জন আহত হন। আহতদের মধ্যে লিয়াকত আলী বল্টু কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান।

আরো পড়ুন>>>শৈলকুপায় নির্বাচনী সহিংসতায় প্রার্থীর ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

শৈলকুপা উপজেলার উমেদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করে শাস্তির দাবি জানান নিহতের স্বজনরা।

এ ঘটনার ৫ ঘণ্টা পর পাশের কুমার নদ থেকে একই ওয়ার্ডের প্রতিপক্ষ কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর হোসেন খান বাবুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তার  লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার সাঈদ বলেন, কী কারণে এ প্রার্থীর মৃত্যু হয়েছে তা জানতে সময় লাগবে। তদন্ত চলছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচন ১৬ জানুয়ারি। বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে প্রচার প্রচারণা শেষ হচ্ছে। দুই ব্যক্তি নিহত হওয়ার ঘটনায় এখন এলাকায় টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

পরিস্থিতি সামাল দিতে মোতায়েন করা হয়েছে বিপুল সংখ্যক আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য।

স্বাআলো/আরবিএ