বাঘারপাড়ায় শিশুদের খেলনা বেঁচে দিলেন প্রধান শিক্ষক

যশোরের বাঘারপাড়ায় একটি বিদ্যালয়ের স্লিপার (শিশুদের খেলার কাঠামো) চুরি করে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার স্কুল বন্ধ থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক স্থানীয় এক ব্যক্তির যোগসাজসে স্লিপারটি বিক্রি করেছেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

উপজেলার মিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এ স্লিপার চুরির ঘটনা নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের খেলার জন্য বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে দুই বছর আগে একটি স্লিপার নির্মাণ করা হয়। ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান ও মিরপুর গ্রামের শরিফুল ইসলাম যোগসাজস করে স্লিপারটি স্থানীয় ভাংগাড়ি ব্যাবসায়ী সোহেলের কাছে বিক্রি করেন। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। অনেক অভিভাবক এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

স্লিপার চুরির বিষয়ে অভিযুক্ত শরিফুল ইসলাম বলেন, স্কুলের প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান আমাকে একটি ভাঙ্গাড়ি মালামাল ক্রয় করা লোক দেখে দিতে বলেন। আমি ভাঙ্গাড়ি ব্যবসায়ীকে শুধুমাত্র ফোন দিয়েছি। এই ছাড়া আমি আর কিছু জানিনে।

আরো পড়ুন>>>যশোরে দুই ভাইকে পিটিয়ে জখম ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা

ভাংগারি ব্যাবসায়ী সোহেল বলেন, মীরপুর গ্রামের শরিফুল কিছু ভাঙ্গাড়ি মালামাল বিক্রি করবেন বলে আমাকে খবর দিয়ে স্কুলে নিয়ে যান। সেখান থেকে আমি ৪৭ কেজি ওজনের সিপারটি এক হাজার ৪০০ টাকা দিয়ে ক্রয় করি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান বলেন, বৃহস্পতিবারে আমি স্লিপারটি দেখে এসেছি। শনিবার সকালে চুরির বিষয়টি জানতে পারি। নিউজ করার দরকার নেই। ।

স্কুল পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আব্দুল করিম বলেন, আমি সারাদিন কাজে ব্যস্ত থাকি। এ বিষয়ে আমি কিছুই জানিনে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান বলেন, স্লিপার চুরির সাথে যারা জড়িত তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইননানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্বাআলো/আরবিএ