যে আমল করলে মহানবী (সা.) হাত ধরে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন

জান্নাতে যাওয়ার কামনা-বাসনা কার না আছে? তা আবার মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজ হাতে ধরে জান্নাতে প্রবেশ করেবেন। মুমিনের জন্য এরচেয়ে বড় সৌভাগ্য আর কী হতে পারে? কী এমন আমল রয়েছে; যার বিনিময়ে তিনি তাঁর উম্মতকে হাত ধরে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন?

‘হ্যাঁ’, ছোট্ট একটি আমল রয়েছে। হাদিসের বর্ণনায় এমনটিই এসেছে, যা দিনের শুরুতে করতে হয়। তবে এ আমলটির বাস্তবায়নই হচ্ছে মূল কথা।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর এমন উম্মতকে হাত ধরে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন; যে আল্লাহকে প্রভু হিসেবে পেয়ে খুশি, ইসলামকে দ্বীন তথা জীবন ব্যবস্থা হিসেবে পেয়ে খুশি এবং বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নবি হিসেবে পেয়ে খুশি ও সন্তুষ্ট। হাদিসে পাকে এ আমলটির কথাই বলা হয়েছে-

হজরত মুনাইজির রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-

‘যে ব্যক্তি সকালে এ বাক্যগুলো বলবে-

رَضِيْتُ بِاللهِ رَبًّا وَّ بِالْاِسْلَامِ دَيْنَا وَّبِمُحَمَّدٍ نَبِيَّا

উচ্চারণ : ‘রাদিতু বিল্লাহি রাব্বাও ওয়া বিল ইসলামি দিনাও ওয়া বিমুহাম্মাদিন নাবিয়্যা’

অর্থ : ‘আল্লাহকে প্রভু হিসেবে, ইসলামকে দ্বীন হিসেবে ও মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে নবি হিসেবে গ্রহণ করতে পেরে আমি সন্তুষ্ট ও খুশি হয়েছি।’

(এ ঘোষণাকারীর জন্য) আমি দায়িত্ব গ্রহণ করেছি যে, তাঁর হাত ধরে তাঁকে জান্নাতে প্রবেশ করাবো।’ (আত-তারগিব ওয়াত তারহিব)

অন্তরের বিশ্বাস, মুখের স্বীকৃতি ও কাজের বাস্তবায়নের মাধ্যমে প্রতিদিনের এ ঘোষণায় প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর প্রিয় উম্মতকে নিজের মোবারক হাতে ধরে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন। আর যে উম্মতকে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজ হাতে ধরে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন; তার জন্য এর চেয়ে সৌভাগ্যের আর কী হতে পারে!

সুতরাং মুমিন মুসলমানের জন্য অত্যন্ত জরুরি, দিনের শুরুতে এ ঘোষণা দেয়া এবং দিনব্যাপী সব কাজে এ ঘোষণার বাস্তবায়ন করা। আর তাতেই মিলবে বরকতময় জান্নাত পাওয়ার এ সৌভাগ্য।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সৌভাগ্যের এ মর্যাদা পেতে হাদিসে ঘোষিত আমলটি যথাযথভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

স্বাআলো/এসএ