সম্পর্কে সুখী কি না, জানাবে যেসব লক্ষণ

কোনো সম্পর্ক যেমন বেশ মজার হয় তেমনই আবার কিছু সম্পর্ক হয় বেশ জটিল। এই সম্পর্কে আপনি খুশি তো? নাকি বাকিদের চোখে ভালো হওয়ার জন্য খুশি থাকার অভিনয় করতে হয়? সম্পর্কে সুখী কি না তা জানাবে এসব লক্ষণ:

নিজস্ব পরিচয়

এই পৃথিবীতে সব মানুষেরই নিজস্ব একটি পরিচয় রয়েছে। নিজের যোগ্যতাতেই প্রত্যেকে কিন্তু প্রত্যেকের থেকে আলাদা। ওমুকের স্ত্রী কিংবা তমুকের স্বামী বলার দিন এখন শেষ। সকলেরই একটি পোশাকি নাম রয়েছে। আর সেই নামই তার পরিচয়। প্রেমিক-প্রেমিকা কিংবা স্বামী-স্ত্রী অবশ্যই একে অপরের উপর নির্ভরশীল হবেন। কিন্তু খেয়াল রাখা জরুরি, নিজের পরিচয় যেনো কখনো হারিয়ে না যায়।

দুর্বলতাকেই মাপকাঠি ধরবেন না

হতেই পারে কিছু বিষয়ে আপনার সঙ্গী আপনার ওপর একটু দুর্বল। কিছুক্ষেত্রে আপনার কোনো ব্যবহার কিংবা কথা তার খারাপ লাগলেও মুখ ফুটে বলতে পারেন না। শুধু আপনাকে ভালোবাসেন বলে। আর এই ব্যবহারই কিন্তু তার মাপকাঠি নয়। ফলে কখনোই তাকে টেকেন ফর গ্রান্টেড নেবেন না। যথাযোগ্য সম্মান দিন।

একে অপরকে সব কথা বলুন

ভালো-মন্দ সব কিছুই একে অপরের সঙ্গে ভাগ করে নিন। মন খুলে কথা বলুন। এতে ভুল বোঝার কোনো অবকাশ থাকে না। সেই সঙ্গে কোনো সমস্যা আসলেও দুজনে মিলে তার সমাধান করা যায়। নিজেদের সিদ্ধান্ত দুজনে আলোচনা করেই নিন। একে অপরকে সময় দিন। এতে সম্পর্ক ভালো থাকবে। সুখী দাম্পত্যের এটাই আসল রহস্য।

একে অপরের কথা রাখুন

একসঙ্গে যখন পথ চলা শুরু করেছেন তখন দুজনকেই কিছু কথা রাখতে হবে। কোনো কিছুর প্রতিশ্রুতি দিলে তা রাখার চেষ্টা করুন দুজনেই। এছাড়াও সম্পর্কের মূল কথা হলো বিশ্বাস। বিশ্বাসে যেনো কখনো চিড় না ধরে। একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা বজায় রাখুন। দেখবেন খুব ভালো আছেন দুজনে।

প্রেমে পড়লে ছেলেরা যেসব কাজ অবশ্যই করেন

সেক্স দিয়েই সমস্যার সমাধান নয়

কোনো জটিল সমস্যা, মন খারাপ, রাগারাগি ইত্যাদির দাওয়াই কিন্তু আদর বা সেক্স নয়। সেক্স হয়তো সাময়িক মনকে ভালো রাখবে। কিন্তু দুজনের সম্মতি ছাড়া মেলামেশা একেবারেই উচিত নয়। এতে মনের উপর আরো খারাপ প্রভাব পড়ে। আগে ভুল বোঝাবুঝির সমাধান করুন। যৌনতা দিয়ে সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা এড়িয়ে চলুন।

স্বাআলো/এস