মহারাষ্ট্রে ১৮৬ স্কুল শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত

ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের একটি স্কুলের ১৮৬ জন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এরা সবাই একটি হোস্টেলের শিক্ষার্থী। ওই স্কুলটি রাজ্যের ওয়াসিম জেলায়। স্কুলের আরো চার শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ছাত্র ও শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরই ওই স্কুলকে করোনা সংক্রমণ এলাকা হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

এদিকে দুই সপ্তাহ আগে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের রাজ্য কেরালার দুটি স্কুলের শিক্ষার্থী-শিক্ষকেরা করোনায় আক্রান্ত হোন। রাজ্যের মালাপ্পুরাম জেলার পাশাপাশি দুটি স্কুলের দশম শ্রেণির ১৮৯ জন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়। একই সঙ্গে স্কুলে ৭০ জন শিক্ষক ও কর্মীও আক্রান্ত হোন করোনায়। এরপর মহারাষ্ট্রের ১৮৬ স্কুল শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেলো।

বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ২৫ লাখ ছাড়িয়েছে

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, স্কুলের শিক্ষার্থীরা অধিকাংশই রাজ্যর অমরাবতী ও ইভাতমাল জেলার। আর এই দুই জেলায় সম্প্রতি করোনাভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে। গতকাল বুধবার মহারাষ্ট্র রাজ্যে ৮ হাজার ৮০০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গত চার মাসের মধ্যে এ রাজ্য করোনা শনাক্তের হারে বুধবারই সবচেয়ে বেশি। গতকাল মহারাষ্ট্রের ৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই রাজ্যে ২১ লাখ ২১ হাজার ১১৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ রাজ্যে এখন পর্যন্ত ৫১ হাজার ৯৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর এ জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানিয়েছে রাজ্য সরকার ও পুলিশ। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানানো হয়েছে।

স্কুলের সব শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও স্কুলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীর করোনা টেস্ট করা হয়েছিলো। এতজন কীভাবে করোনায় আক্রান্ত হলেন বা করোনা সবার মধ্যে ছড়িয়ে পড়লো, তা খতিয়ে দেখছেন রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

গতকাল মঙ্গলবার ওয়াসিম জেলার একটি মন্দিরে করোনার স্বাস্থ্যবিধি ভঙ্গ করে বিপুল মানুষের সমাগম ঘটে। মহারাষ্ট্রের ক্ষমতাসীন জোটের নেতৃত্বে থাকা শিবসেনার মন্ত্রী সঞ্জয় রাথুড আসার কারণে এ জমায়েত হয়। এ জমায়েতে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে বলেও অভিযোগ করা হয়েছে রাজ্যর বিরোধী দলের পক্ষ থেকে। এটা নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশ হয়েছে।

এদিকে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে এ ঘটনায় যারা স্বাস্থ্যবিধি ভঙ্গ করেছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন, আইন সবার জন্য সমান। করোনার প্রকোপের কারণে ধর্মীয়, সামাজিক ও রাজনৈতিক জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

করোনার প্রকোপ কমে আসায় ভারতের রাজ্যগুলোয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে শুরু করেছে। এর আগে ৮ ফেব্রুয়ারি ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের রাজ্য কেরালায় স্কুল খোলার পর দুটি সরকারি স্কুলের শিক্ষার্থী-শিক্ষকেরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। শিক্ষার্থী-শিক্ষকেরা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরই স্কুল দুটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এরপরই রাজ্যের মালাপ্পুরাম জেলার পাশাপাশি দুটি স্কুলের দশম শ্রেণির ১৮৯ জন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়। একই সঙ্গে স্কুলে ৭০ জন শিক্ষক ও কর্মীও আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়।

স্বাআলো/এসএ