চলতি মাসে বাংলাদেশে আসছেন দক্ষিণ এশিয়ার তিন রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান

স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ, নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভান্ডারী এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশ সফরে আসছেন। দক্ষিণ এশিয়ার এই তিন রাষ্ট্রপ্রধান চলতি মাসের (মার্চ) ১৭ থেকে ২৬ তারিখ সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সফর করতে পারেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (এশিয়া) রাষ্ট্রদূত মাশফি বিনতে শামস গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সূত্রে জানায়, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আগামী ২৬ ও ২৭ মার্চ বাংলাদেশ সফর করবেন এবং স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন। মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ এবং নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভান্ডারীর ২৬ মার্চের আগেই বাংলাদেশ সফরের কথা রয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার এই তিন রাষ্ট্রপ্রধানের বাংলাদেশ সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, তুরস্ক এবং হাঙ্গেরির রাষ্ট্রপ্রধানও এই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সফরের কথা ছিলো। কিন্তু করোনা সংক্রমণ এখনো নিয়ন্ত্রণে না আসায় শেষ পর্যন্ত তাদের সফর নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

এদিকে দক্ষিণ এশিয়ার কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিষয় চূড়ান্ত করতে আগামী ৪ মার্চ দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর ঝটিকা সফরে বাংলাদেশ আসছেন। এস জয়শঙ্করের ঝটিকা সফরে দুই দেশের সব বিষয় নিয়ে পর্যলোচনা করা হবে। আসন্ন সফরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকের পরই নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরে দুই দেশের মধ্যে কোনো কোনো খাতে আরো অগ্রগতি হবে তা চূড়ান্ত করা হবে।

বাংলাদেশের কূটনীতিকরা চাচ্ছেন, ভারতের শীর্ষ প্রধানের বাংলাদেশ সফরে কমপক্ষে ছয়টি বিষয়ে সমাঝোতা স্মারক বা চুক্তি করতে, যার মধ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং কুশিয়ারা নদীতে পানি উন্নয়ন অধিক গুরুত্ব পাবে। এছাড়া বাণিজ্য, বাংলাদেশ-ভারত-নেপালের মধ্যে স্থল যান চলাচল, জ্বালানি, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা, সমুদ্র-সম্পদ প্রাধান্য পাবে।

অন্যদিকে মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতির সফরে মৎস্য খাতের সহযোগিতা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে সমাঝোতা স্মারক সই হবে বলে জানা গেছে।

স্বাআলো/এসএ