কুষ্টিয়ায় এনআইডি জালিয়াতির ঘটনায় ৫ নির্বাচন কর্মকর্তা বরখাস্ত

কুষ্টিয়া: জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতির ঘটনায় এক উপসচিবসহ পাঁচ নির্বাচন কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আজ সোমবার বিকেলে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করে নির্বাচন কমিশন। গত বছর কুষ্টিয়ায় এই জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছিলো।

বরখাস্তকৃতরা হলেন নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব নওয়াবুল ইসলাম, ফরিদপুরের অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, মাগুরা সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অমিত কুমার দাস। এই তিনজন এনআইডি জালিয়াতির সময় কুষ্টিয়ায় কর্মরত ছিলেন। বাকি দুইজন কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বর্তমান নির্বাচন কর্মকর্তা সামিউল ইসলাম ও কুষ্টিয়া নির্বাচন অফিস সহকারী জিএম সাদিক সত্যবাদী।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে জালিয়াতির মাধ্যমে ছয়জনের এনআইডি পরিবর্তন করে শহরের এনএস রোডের এমএম ওয়াদুদ মিয়ার ১০০ কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাৎ করার চেষ্টা কওে জালিয়াতি চক্র। এ ঘটনায় কুষ্টিয়া রাজনৈতিক ব্যক্তিসহ ১৮ জনের নামে মামলা হয়েছিল। ঘটনার মূল হোতা হার্ডওয়ার্ড ব্যবসায়ী মহিবুল ইসলাম এবং যুবলীগ নেতা আশরাফুজ্জামান সুজনসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে মামলার বিচার চলছে।

এরপর নির্বাচন অফিসের পক্ষ থেকে বিভাগীয় তদন্ত শুরু হয়। জালিয়াতি বাস্তবায়ন করেন এসব নির্বাচন কর্মকর্তা। বিষয়টি তদন্তে প্রমাণ পাওয়া গেল গত ৪ মার্চ কুষ্টিয়া মডেল থানায় এই ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা আনিসুর রহমান।

স্বাআলো/ডিএম

.

Author