স্মৃতির স্বাধীনতা

স্বাধীনতা আমার বুকে লেখা স্বাধীনতা আমার স্মৃতি,
স্বাধীনতা ভাসে দু’নয়নে পাইনা খুজে জ্যোতি।
স্বাধীনতা রবে বুকে আমার অনির্বাণ গাঁথা…
তুমি বলছো সেই স্বাধীনতার কথা।

যে স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছিলো ত্রিশ লক্ষ শহীদের প্রাণ…
আমি আজও গায় সেই শহীদদের মুক্তির জয়োগান।
স্বাধীনতার অনীক আঘাত এনেছিলো নিরাশ্রয় হলো অনাথা…
তুমি বলছো সেই স্বাধীনতার কথা।

স্বাধীনতার সমরে বোমা, বন্দুক, গ্রেনেডে
অনিষ্ট হয়েছিলো বেশুমার বাঙ্গালি…
আজও আমি প্রতিক্ষণে সেই নৃশংস হন্তারকদের দেয় শুধু গালি।
স্বাধীনতার রোষানলে কোল খালি করেছিলো, সহস্র শহীদদের মাতা…

তুমি বলছো সেই স্বাধীনতার কথা।
যে স্বাধীনতার রণে কতশত ঘর
হয়েছিলো হা-ঘরে,
কত হিন্দু, মুসলিম সুবর্ণবনিক

দেশ ছেড়েছিলো সৃনির ঘোরে।
স্বাধীনতার সংগ্রামে রাজপথের রক্তরঞ্জিত স্মৃতি
আজও করে উতলা…
তুমি বলছো সেই স্বাধীনতার কথা।

স্বাধীনতার বিগ্রহে অপ্রমেয় মা-বোনের
গাত্র ভক্ষণ করেছিলো বসন খুলে,
নিশুতির অন্ধকারে কুকুরের মতো অপরিমেয়
মা-বোন নিয়ে গেছে ওরা তুলে।

স্বাধীনতার সংঘাতে নিশীথের অন্ধকারে উচ্ছিষ্ট করেছিলো
অসংখ্য পুরুষের দয়িতা…
তুমি বলছো সেই স্বাধীনতার কথা।
স্বাধীনতার জঙ্গ পেরিয়ে

বিশ্ব রয়েছে আজ কত শান্ত,
রয়েছে দন্ডায়মান লাল-সবুজ পতাকা
শুধু নেই আজ সেই সাহসী বীরগুলো
বেঁচে নেই কেউ হৃত।

স্বাধীনতার সংগ্রামে জয় হয়েছে, উচু হয়ে
দাঁড়িয়ে আছে সব বাঙ্গালির মাথা…
তুমি বলছো সেই স্বাধীনতার কথা…
তুমি আর বলোনা এই স্বাধীনতার কথা।।

লেখক: সিরাজসুমন, সরকারি এম এম কলেজ, যশোর। এমএ (মাস্টার্স) ১৮তম ব্যাচ। বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ।