ঝিকরগাছায় তরমুজ আনারসের পর পাল্লায় উঠল লিচু

যশোরের ঝিকরগাছায় এবার পাল্লায় উঠেছে রসালো ফল লিচু। ভোক্তা অধিকার আইন অমান্য করে অসাধু ফল ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফার লোভের জন্য ঝিকরগাছা বাজারে ওজনে বিক্রি করছেন লিচু। এর আগে থেকে তরমুজ ও আনারসও বিক্রি করা হচ্ছে ওজন করে।

আজ ঝিকরগাছা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ফলপট্টিতে দেখা গেছে, লিচু ওজনে বিক্রি করতে। প্রতি কেজি লিচু বিক্রি করা হচ্ছে ১৬০-২০০ টাকা কেজি। এর আগে থেকেই ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে তরমুজ।

পাশাপাশি আনারস বিক্রি করা হচ্ছে প্রতি কেজি ৮০ টাকা করে। লিচু বিক্রেতা মাছুম হোসেন জানান, লিচু কেনা হয়েছে শ’ হিসেবে। তবে ওজনে বেঁচলে একটু বিক্রি বেশি হয়।

সুরোত আলী জানান, আনারস আমাদের ওজনে কেনা, তাই ওজনেই বিক্রি করা হচ্ছে। ফল বিক্রেতা ইউনুস আলী জানান, ওজনে বিক্রি করলে লাভ বেশি হয় না। কিন্তু বিক্রি বেশি হয়। এজন্য দোকানদাররা এসব ফল ওজনে বিক্রি করছে।

ঝিকরগাছায় প্রবাসী দুই সহদরের ইফতারি পৌঁছাচ্ছে বাড়ি বাড়ি

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেবা‘র সভাপতি মাস্টার আশরাফুজ্জামান বাবু জানান, গণমাধ্যমের খবর অনুসারে প্রতিটি তরমুজ ৪০ থেকে ৫০ টাকায় পাইকারী কিনতে হয় মোকাম থেকে। অথচ, এনে দোকানদার ৫০ টাকা কেজি বিক্রি করছেন। সেক্ষেত্রে কোন কোন তোরমুজে তাঁদের লাভ হচ্ছে একশ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত। আবার একটি তরমুজের অর্ধেক বা চতুর্থাংশ চাইলে তো দোকানদার দিচ্ছেন না। এতে করে ভোক্তারা ঠকছেন।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ডাক্তার কাজী নাজিব হাসান জানান, বিষয়টি এডিএম কাজী সাইফুজ্জামানকে জানানো হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ দিলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এডিএম কাজী সাইফুজ্জামান জানিয়েছেন, এ জাতীয় ফল ওজনে বিক্রি উচিত না। ভারত ফেরত যাত্রীদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিয়ে প্রশাসন ব্যস্ত থাকাই পরবর্তীতে ভোক্তা অধিকার আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্বাআলো/আরবিএ