ফের বাড়তে পারে লকডাউন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেশব্যাপী সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন চলছে। এরই মধ্যে দুই দফা লকডাউন শেষ হয়ে তৃতীয় দফায় লকডাউন চলছে। চলমান এই লকডাউনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ৫ মে। কিন্তু এরই মধ্যে কিছু বিষয় নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। দেখা যাচ্ছে, কঠোর লকডাউন শেষ হলে ঈদ পর্যন্ত মাত্র তিনটি কর্মদিবস পাওয়া যাবে। এই পরিস্থিতিতে কী লকডাউনের মেয়াদ আরো বাড়বে নাকি বিধিনিষেধ শিথিল করে দেয়া হবে।

এখন এই বিষয়টি নিয়েই চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। কারণ ঈদের আগে যেহেতু তিনটি কর্মদিবস রয়েছে তাই কিছুটা শিথিল করে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো যায় কিনা। এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আগামী ৫ মের আগেই আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৩ বা ১৪ এপ্রিল মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে। আর এই ঈদকে কেন্দ্র করে লকডাউনের মেয়াদ বাড়বে না বিধিনিষেধ শিথিল হবে এটি নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যেই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, হঠাৎ করেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার ফলে গত ১৪ এপ্রিল কঠোর লকডাউন শুরু হয়। লকডাউনের মধ্যে পালনের জন্য ১৩টি নির্দেশনা দেয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে। পরে সাতদিন করে দু-দফা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। সেই মেয়াদ শেষ হবে আগামী ৫ মে মধ্যরাতে।

এদিকে লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। খোলা রয়েছে শিল্প-কারখানা। এছাড়া জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান ছাড়া যথারীতি সরকারি-বেসরকারি অফিস, গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। সীমিত পরিসরে ব্যাংকে লেনদেন করা যাচ্ছে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত।

স্বাস্থ্যবিধি না মানলে আবার কঠোর লকডাউন: ওবায়দুল কাদের

আগামী ৫ মে লকডাউনের মেয়াদ শেষে ঈদের আগে কর্মদিবস পাওয়া যাবে ৬ (বৃহস্পতিবার), ৯ (রবিবার) ও ১১ মে (মঙ্গলবার)। এর মধ্যে ৭ ও ৮ মে হচ্ছে সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্র ও শনিবার। এরপর ১০ মে (সোমবার) হচ্ছে শবে কদরের ছুটি। আগামী ১২ মে (বুধবার) থেকে শুরু হচ্ছে ঈদের ছুটি। রমজান মাস যদি ২৯ দিনে শেষ হয় তবে ঈদুল ফিতর হবে ১৩ মে। এক্ষেত্রে ১৩ ও ১৪ মে ও (বৃহস্পতি ও শুক্রবার) ঈদের ছুটি থাকবে। তবে রমজান মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হলে ঈদের ছুটি আরো একদিন বাড়বে, সেক্ষেত্রে ১৫ মে ও (শনিবার) ছুটি থাকবে।

লকডাউনের বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত কী হবে জানতে চাইলে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, এখনো এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসেনি। পরিস্থিতি বুঝে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ বিষয়ের ওপর আমাদের চিন্তা-ভাবনা চলছে যে, আমরা কী করবো।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ৫ তারিখের পর বিধিনিষেধের কী হবে সেটা এখনো চিন্তা-ভাবনার পর্যায়ে রয়েছে। আমরা ৫ তারিখের আগেই সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবো।

স্বাআলো/এসএ