কৃতজ্ঞ হলে সুখী হওয়া যায়

‘সুখ সুখ করি কেঁদো না আর, যতই কাঁদিবে ততই বাড়িবে হৃদয় ভার’। সমাজ জীবনে সর্বত্র একটা অস্থিরতাভাব সাম্প্রতিককালে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এর প্রধান কারণ হলো সকলেই কোনো না কোনোভাবে নিজেকে অসুখি ভাবে। অর্থনৈতিক সমস্যার কারণে অসুখি মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। আবার টাকা থাকলেই যে সুখ পাখি হাতের মুঠোয় ধরা দেয় তাও কিন্তু সঠিক নয়। কত কোটিপতি অসুখি মানুষ আছে তার হিসেব দেয়া খুবই কঠিন। দেখা যায় কোটিপতি মানুষটি দাম্পত্য অশান্তিতে সার্বক্ষণিক অসুখের অগ্নিকুন্ডের ভেতর দিয়ে চলছেন। আবার দেখা ঘর-বাড়ি হারা কোনো মানুষ শহরের ফুটপাথে নিশ্চিন্তে নাক ডেকে ঘুমাচ্ছে। অশান্তি কী জিনিস তা সে জানেই না। অসুখ দূর করে সর্বদা শান্তির সরবরে অবগাহন করাও কিন্তু সম্ভব নয়। তবু সহ্যমাত্রার ভেতর রেখে চলতে পারাটাকে মোটামুটি সুখ ভাবা যেতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রে ইযয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান এবং কগনিটিভ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক লরি স্যান্টোস বলেছেন, বিজ্ঞানে এটা প্রমাণ হয়েছে যে সুখি হতে হলে সচেতন প্রচেষ্টার প্রয়োজন। কিন্তু এটা খুব একটা সহজ কাজ নয়। এজন্যে সময় লাগবে। ইতিবাচক মনোবিজ্ঞানের ওপর ভিত্তি করে একটি কোর্স পরিচালনা করেন অধ্যাপক স্যান্টোস। এটা মনোবিজ্ঞানেরই একটি শাখা যেখানে সুখ এবং আচরণগত পরিবর্তনের বিষয়ে পড়ানো হয়। কিভাবে সুখী হতে হবে তার কিছু কলাকৌশল তিনি শিক্ষার্থীদের শেখান সপ্তাহে দুদিন। কিভাবে সুিখ হওয়া যাবে তার পাঁচটি টিপস তিনি দিয়েছেন। এগুলো হলো কেউ যদি সত্যিই জীবনে সুখী হতে চায় তাহলে তাকে কৃতজ্ঞ হতে হবে, পরিবারের সাথে আরো বেশি সময় কাটাতে হবে, বন্ধুদের সাথে মেলামেশা করতে হবে, দিনের একটা সময় কিছুক্ষণের জন্যে নিজেকে সবকিছু থেকে সরিয়ে ধ্যানে মগ্ন হতে হবে, সোশাল মিডিয়া থেকে দূরে সরে আসতে হবে এবং বেশি ঘুমাতে হবে।

তার টিপস মতে কৃতজ্ঞতার একটি তালিকা তৈরি করে নিতে হবে। তিনি দেখেছেন যেসব শিক্ষার্থী নিয়মিতভাবে এটা চর্চ্চা করেন তাদের সুিখ মনে হয়। বেশি নিশ্চিন্তে ঘুমানোকে তিনি দ্বিতীয় টিপস হিসেবে দেখিয়েছেন।

নিরাপদ খাদ্য প্রাপ্তির নিশ্চয়তা চাই

অধ্যাপক স্যান্টোস বলেছেন, বেশি এবং নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারলে বিষন্নতায় ভোগার সম্ভাবনা কম থাকে। এফলে ইতিবাচক মনোভাবও তৈরি হয়। ধ্যান করা সুখি হবার আর একটি টিচস। প্রতিদিন অন্তত ১০ মিনিট করে মেডিটেট বা ধ্যান করা সুখি হবার অন্যতম উপায় বলে তিনি উল্লেখ করেন। অধ্যাপক স্যান্টোস বলেন, তিনি যখন ছাত্রী ছিলেন তখন তিনি নিয়মিত ধ্যান করতেন এবং দেখেছেন সেটা করলে মন ভালো থাকে। তিনি পরিবার ও বন্ধুদের সাথে বেশি সময় কাটাতে বলেছেন। পরিবার ও বন্ধুদের সাথে ভালো সময় কাটালে সুখি হওয়া যায়।

সোশাল মিডিয়ায় যোগাযোগের পরিবর্তে বাস্তবে এই যোগাযোগ বৃদ্ধি করলে সুখি হওয়া যায়। সোশাল মিডিয়া থেকে সুখের বিষয়ে মিথ্যা যেসব ধারণা পাওয়া যায় সেসবে ভেসে যাওয়া উচিত নয়।

অধ্যাপক স্যান্টোস সুখপাখিকে হাতের মুঠোয় আনার যে টিপসগুলো কথা উল্লেখ করেছেন তা চর্চা করলেই যে সুখি হওয়া যাবে তা আমরা নিশ্চিত করে বলছিনে। আবার বিপক্ষেও আমাদের অবস্থান নয়। যেহেতু তিনি একটি খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয়ে মনোবিজ্ঞানের অধ্যাপক সেহেতু তার দেয়া টিপসগুলো র্চ্চা করে দেখতে দোষ নেই। পৃথিবীর সব মানুষ সুখি হোক এ কামনা আমাদের।

স্বাআলো/আরবিএ