প্রণোদনা পাচ্ছেন চৌগাছার গাভী ও পোল্ট্রি খামারীরা

চৌগাছা: যশোরের চৌগাছায় করোনাকালীন প্রণোদনা পাচ্ছেন ১ হাজার ৬০৭ গাভী ও পোল্ট্রি খামারী। এরমধ্যে ১ হাজার ৫০৪ জন গাভী ও ১০৩ জন পোল্ট্রি খামারী রয়েছেন।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা প্রভাষ চন্দ্র গোস্বামী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ দফতর থেকে জানা যায়, বিভিন্ন ক্যাটাগরীর গাভী খামারীরা ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা করে গাভী প্রণোদনার টাকা সরাসরি নিজেদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পাবেন। এছাড়া পোল্ট্রি খামারীরা ১১ হাজার ২৫০ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত নিজেদের মোবাইলে পেয়ে যাবেন।

চৌগাছায় বাল্যবিবাহের আসরে আদালতের অভিযান, বরকে জরিমানা

প্রাণি সম্পদ দফতর আরো জানায়, উপজেলার ফুলসারা ইউনিয়নের ১০৩ জন, পাশাপোলের ১১০ জন, সিংহঝুলির ১১০ জন, ধুলিয়ানীর ১২২ জন, চৌগাছা সদরের ১০৭ জন, জগদীশপুরের ১৩২ জন, পাতিবিলার ১২২ জন, হাকিমপুরের ৪৮ জন, স্বরুপদহের ১৯৮ জন, নারায়ণপুরের ২১৬ জন, সুখপুকুরিয়ার ১০২ জন ও চৌগাছা পৌরসভার ১২০ জন গাভী খামারি এই প্রণোদনার টাকা পাচ্ছেন। এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ১০৩ জন পোল্ট্রি খামারী প্রণোদনার টাকা পাচ্ছেন।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা প্রভাষ চন্দ্র গোস্বামী বলেন, উপজেলার মোট ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার মোট ১ হাজার ৬০৭ জন গাভী ও পোল্ট্রি খামারীকে এই প্রণোদনা দেয়ার জন্য সুপারিশ পাঠানো হয়েছে।

প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা আরো জানান, চৌগাছার সুপারিশকৃত গাভী খামারীদের মধ্যে যারা নির্বাচিত হবেন তারা ২ থেকে ৬টি গাভী শ্রেণিতে ১০ হাজার টাকা করে পাবেন। এছাড়া পোল্ট্রি খামারীরা তিন শ্রেণিতেই আছেন। তারা তাদের নিজ নিজ শ্রেণিতে ১১ হাজার ২৫০ টাকা থেকে ২০ হাজার টাকা করে পাবেন।

তিনি আরো জানান, রবিবার (২৭ জুন) থেকে কেন্দ্রীয়ভাবে মোবাইল ফোন নম্বর, ন্যাশনাল আইডি নম্বর ইত্যাদি যাচাই-বাছাই করে বিকাশ/রকেট/শিওরক্যাশের মাধ্যমে এই টাকা প্রদান শুরু হয়েছে।

স্বাআলো/আজিজুর/এসএ