চৌগাছায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় দম্পতি গ্রেফতার

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের চৌগাছায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় দম্পতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নের নগরবর্ণি (গোপিনাথপুর) গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আক্তারুজ্জামান (৪০) ও তার স্ত্রী রিফাত মনির লিজাকে (২৮) গ্রেফতার করা হয়। ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহার করে ভিডিও ধারণ ও অপপ্রচারের উদ্দেশ্যে ছড়িয়ে দেয়া ও ১৬ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তাদের নামে মামলা করেছেন  চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য চাঁদনী আক্তার।

বাদীর অভিযোগ, একই এলাকায় বসবাস করার সুবাদের আসামি দম্পতির সাথে তার সখ্যতা গড়ে উঠে। সেই সূত্রে তারা তার ফেসবুক আইডি খুলে দেন। তবে গোপনে তার ফেসবুকের আইডি খুলতে ব্যবহৃত ইমেইল একাউন্ট ও পাসওয়ার্ড তাদের কাছে রেখে দেন। গত ১৭ আগস্ট তাদের দুইজনের নিজ নামের ফেসবুক আইডি থেকে আমার ভিডিও কলের কথোপকথনের অসচেতন মুহুর্তের ভিডিও চিত্র গোপনে ধারণ করে অশালীন মন্তব্য প্রকাশসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক ও নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় সাংবাদিকসহ আমার পরিচিত মহলে ছড়িয়ে দেয়।

বাদী এজাহারে আরো উল্লেখ করেছেন, তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের চৌগাছা উপজেলা শাখার নির্বাহী কমিটির সদস্য। ২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান পদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করেছিলেন। ভবিষ্যতেও নির্বাচন করবেন। আসামিরা বাদীর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হিসেবে সামাজিকভাবে হেয় করতে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এই কাজ করেছে। ভিডিও ছড়ানোর পরে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা হোয়াটসঅ্যাপে ম্যাসেজ ও ভয়েস ম্যাসেজের মাধ্যমে ১৬ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে এবং হুমকি-ধামকি দেয়।

চৌগাছায় ইউএনওর দায়িত্ব হস্তান্তর

চৌগাছা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম কিবরিয়া বলেন, ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহার করে ভিডিও ধারণ ও অপপ্রচারের উদ্দেশ্যে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে তাঁদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। সেই মামলায় মঙ্গলবার তাদের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের একটি মামলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবারই (৩১ আগস্ট) তাদের আদালতে পাঠানো হবে।

স্বাআলো/আরবিএ