ফোন দিলেই মেলে অক্সিজেন সেবা

লিটন ঘোষ জয়, মাগুরা: জেলার শ্রীপুর উপজেলার খামারপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১৯৮৭ ব্যাচের ছাত্ররা গড়ে তুলেছেন ৮৭ ফাউন্ডেশন নামের একটি সেচ্ছসেবী সংগঠন। ইতোমধ্যে এই সংগঠনটি মানবিক সেবার মাধ্যমে করোনায় আক্রান্ত মানুষের পরম বন্ধু হয়ে উঠেছে। সংগঠটিতে ফোন দিলেই মেলে অক্সিজেন সেবা। মেঘলা আকাশ গুড়িগুড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা করে নবগ্রাম বাসস্ট্যান্ড থেকে কর্দমাযুক্ত কাঁচা পিচ্ছিল রাস্তা যেনো দুর্গম এলাকা, অদম্য সাহসী স্বেচ্ছাসেবকরা কাঁধে করে অথবা ঠেলে নিয়ে পৌঁছে দিচ্ছে অক্সিজেন সেবা। ২৪ ঘন্টায় প্রস্তুত স্বেচ্ছাসেবকরা। পৌছে যাবে যেকোনো জায়গায় অক্সিজেন সেবা।

করোনা মহামারী প্রকোপ উপলব্ধি করে ৮৭ ফাউন্ডেশন গঠিত হয়, ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে। মাগুরায় প্রথম শ্রীপুর থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করে আলোকিত সামাজিক উন্নয়ন সংস্থার সহযোগিতায়। করোনায় আক্রান্ত মানুষের শ্বাসকষ্ট লাঘবের জন্য তারা এই কার্যক্রম গ্রহণ করে। আর এই কার্যক্রমের জন্য সংগঠনটি ব্যাপক ভাবে এলাকায় সাড়া ফেলেছে। তাদের দেখাদেখি অন্যরাও এখন এগিয়ে এসেছে তাদের পাশে।

সংগঠনটির বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছেন মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের আহবায়ক এম. রেজাউল করিম রেজা, মৃধা ডা. সাইফুল ইসলাম (কানাডা), ফরহাদুল ইসলাম মিন্টু (আমেরিকা), জাহিদুল ইসলাম ওটু (আমেরিকা), মিয়া রকিবুল হক ভুলু (দুবাই)। বিদেশে থাকা সত্ত্বেও দেশের মানুষের প্রতি ভালোবাসা এবং দায়িত্ববোধ থেকেই তারা এই কার্যক্রমের সাথে যুক্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

গাংনালিয়া গ্রামের আয়নাল হক, টুপিপাড়া গ্রামের ওহাব মিয়া, মোস্তফা, নজরুল মিয়ার (স্ত্রী), বিমগাড়ি গ্রামের রবেন মন্ডলসহ প্রায় একশো করোনা আক্রান্ত মানুষকে ইতোমধ্যে অক্সিজেন সুবিধা দিয়েছে সংগঠনটি। অক্সিজেন সেবা পেয়েছেন এমনই একজন হলো- গাংনালিয়া গ্রামের আয়নাল হক। তিনি বলেন, ৮৭ ফাউন্ডেশন যদি আমার বাড়িতে অক্সিজেন পৌঁছে না দিতো, তাহলে হয়তো! আজ আর আমি পৃথিবীতে বেঁচে থাকতাম না। তারা আমার মতো করোনায় আক্রান্ত অনেকের বাড়িতেই পৌঁছে দিয়েছে অক্সিজেন সেবা। তারা আসলে অসহায় মানুষের পরম বন্ধু।

এ ব্যাপারে ৮৭ ফাউন্ডেশনের অন্যতম দুই সংগঠক মাগুরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মৃত্যুঞ্জয় কুমার ঘোষ ও মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের আহবায়ক এম. রেজাউল করিম রেজা জানান, ইতোমধ্যে সংগঠনটি মানুষের কল্যাণের বিভিন্ন কার্যক্রম করে আসছে। প্রাক্তন শিক্ষকদের সম্মাননা, ছাত্র ছাত্রীদের উপবৃত্তি প্রদান, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ফরম পূরণের টাকা প্রদান, শিক্ষার্থীদের মাঝে খাতা কলম বিতরণসহ নানা কাজ করেছি আমরা। তবে এই করোনা মহামারীতে আমরা সংগঠনের পক্ষ থেকে করোনায় আক্রান্ত প্রায় ‘একশো’ মানুষের কাছে দ্রুত পৌঁছে দিয়েছি অক্সিজেন সেবা। শুধুমাত্র একটি ফোন কল পেলেই আমাদের সেচ্ছাসেবকরা তার বাড়িতে গিয়ে পৌঁছে দিয়েছে অক্সিজেন। আমরা আমাদের সাধ্য মতো মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি।

স্বাআলো/এস