লাশ ছাড়া কবর রাখা ইসলামের রীতিবিরোধী, এটা মানুষের সঙ্গেও প্রতারণা: তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস: ‘সংসদে প্রধানমন্ত্রী যথার্থই বলেছেন, জিয়ার মরদেহ কেউ দেখেননি।’ বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, চন্দ্রিমায় জিয়ার মরদেহ থাকার প্রমাণ কোথাও নেই।

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীতে সরকারি বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মত বিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

চন্দ্রিমা উদ্যান থেকে জিয়াউর রহমানের কবর সরিয়ে ফেলা হবে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, লাশ ছাড়া কবর রাখা ইসলামের রীতিবিরোধী। এটা মানুষের সঙ্গেও প্রতারণা। মরদেহ ছাড়া কবর রাখার কোনো কারণ আছে কিনা, সেটিই জনগণের প্রশ্ন।

জিয়াউর রহমানের নাম বিশ্বাসঘাতক হিসেবে লেখা থাকবে: তথ্যমন্ত্রী

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি রাঙ্গুনিয়ার মানুষ, যেখানে জিয়াকে প্রথম সমাহিত করা হয় বলে বিএনপি দাবি করে। রাঙ্গুনিয়া উপজেলার তখনকার চেয়ারম্যান জহির সাহেব এখনো জীবিত। তিনি বলেছেন, তিনটি মরদেহ সেখান থেকে তোলা হয়েছিলো, তার মধ্যে জিয়াউর রহমানের মরদেহ ছিলো না। এরশাদ সাহেব এবং জিয়াউর রহমানের ঘনিষ্ঠজন মীর শওকত দুজনেই বলেছেন, তারা কেউ জিয়ার মরদেহ দেখেননি।’

এ সময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মন্তব্য ‘আওয়ামী লীগ চিরস্থায়ী ক্ষমতার জন্য বিএনপির ওপর নির্যাতন করছে’ এর জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘আওয়ামী লীগ জনগণের ক্ষমতায় বিশ্বাসী, জনগণ যতোদিন চাইবে ততদিন আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনা করবে। এর একদিনও বেশিও আওয়ামী লীগ থাকবে না।’

ড. হাছান বলেন, ‘সন্ত্রাসী, পেট্রলবোমা নিক্ষেপকারী বা ফৌজদারি অপরাধের আসামির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে যদি বিএনপি অপরাধীদের পক্ষ নেয়, তাহলে তো দেশে কোনো ফৌজদারি আইনই কার্যকর করা যাবে না, বিচারও থাকবে না। সুতরাং বিএনপির এসব কথা হাস্যকর।’

স্বাআলো/এস