চুয়াডাঙ্গায় শ্বশুরবাড়ির নির্যাতনে মারাই গেলেন মিঠুন

জেলা প্রতিনিধি, চুয়াডাঙ্গা: দাওয়াত দিয়ে শ্বশুরবাড়ি ডেকে নিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে বেঁধে নির্যাতন করার ৫২ দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলেন জামাই নুরু নবী ওরফে মিঠুন (২৬)।

শুক্রবার (১৫ অেক্টোবর) সন্ধ্যা ৬ টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত নুরু নবী ওরফে মিঠুন চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার বাজদিয়া গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে।

আন্দুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তার জানান, জীবননগর উপজেলার উত্তর বাজদিয়া গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে নুরু নবী ওরফে মিঠুন (২৬) ৫ বছর আগে বাড়ির পার্শ্ববর্তী আশরাফুল ইসলাম আশার মেয়ে তানিয়া খাতুন (২৪) সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তোলেন। সম্পর্কের কিছুদিন পর তারা বিয়েও করেন। তাদের ৩ বছর বয়সী একটি শিশু কন্যা সন্তানও রয়েছে। গত ২৩ আগস্ট শ্বশুর আশরাফুল ইসলাম জামাই নুরনবী ওরফে মিঠুনকে বাড়িতে দাওয়াত দেন। দাওয়াত পেয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে জামাই মিষ্টি নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে যান। সেখানে অবস্থানরত স্ত্রী তানিয়া খাতুনের সাথে তার মনোমালিন্য হয়। এক পর্যায়ে স্ত্রীর নিকট আত্মীয় বাজদিয়া গ্রামের জামাল হোসেন (৪০), আব্দুর রহমান (৫৫), নাসির উদ্দিন (৩৮), আশরাফুল ইসলাম (৪০) এবং তার সহোদর আরিফ হোসেন (৩৫) সংঘবদ্ধভাবে রাত ৯টার দিকে জামাই নুর নবীকে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে বেঁধে নির্যাতন চালায়। নির্যাতনে জামাই মিঠুনের শরীরের বিভিন্নস্থানে গুরুতর জখম হয়। খবর পেয়ে মিঠুনের স্বজনেরা মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং পরবর্তীতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শুক্রবার সন্ধ্যা ৬ টার সময় মারা যান। এদিকে নুরুনবীকে নির্যাতন করার ৫ দিন পর ২৮ আগস্ট নিহতের চাচা সুলতান হোসেন বাদী হয়ে জীবননগর থানায় ৫ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। দায়েরকৃত ওই মামলায় আসামিরা বর্তমানে আদালত থেকে জামিনে রয়েছেন।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, আজ শনিবার (১৬ অক্টোবর) ময়নাতদন্ত শেষে নুরুনবীর মরদেহ নিজ গ্রামে এনে দাফন করা হবে।

বাজদিয়া গ্রামের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জহরুল ইসলাম জানান, আহত নুরু নবী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ময়ন্ততদন্ত শেষে তার মৃতদেহ ঢাকা থেকে বাড়িতে আনা হচ্ছে। আজ রাতে মরদেহ দাফন করা হবে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহাপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) জমির হোসেন বলেন, মামলা তদন্তধীন অবস্থায় নুরু নবীর মৃত্যু হয়েছে।

স্বাআলো/এসএ