তদন্তের মুখোমুখি বিদ্রোহীদের মদদদাতা আ.লীগের ১৬ এমপি

ঢাকা অফিস: দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ, দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী দাঁড় করানোর ক্ষেত্রে প্ররোচনা এবং বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগের ১৬ এমপির বিরুদ্ধে। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ১৬ এমপির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন। তদন্তে প্রমাণিত হলে এই ১৬ এমপির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের আজ তৃতীয় দফা ভোট গ্রহণ হয়ে গেলো। এবারের এই নির্বাচনগুলোতে বিএনপি দলীয় প্রতীক নিয়ে অংশগ্রহণ করছে না। তারা স্বতন্ত্রভাবে অংশগ্রহণ করছে। ফলে এই নির্বাচন অনেকটাই প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন হয়ে উঠেছে। কিন্তু এই প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন নির্বাচনেও চমক সৃষ্টি করেছে আওয়ামী লীগ বনাম আওয়ামী লীগের লড়াই।

আওয়ামী লীগের বিপুল পরিমাণ বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন এবং এই বিদ্রোহী প্রার্থীরা নৌকা প্রতীককে মোটামুটি কোণঠাসা করে ফেলেছে। আর এই প্রেক্ষাপটে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন এবং নেপথ্যে যারা কলকাঠি নেড়েছেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। অবশ্য ইউপি নির্বাচনের শুরু থেকেই আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড নির্বাচনে যেন কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী না দেয় সে ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছিলেন।

বিদ্রোহীদের মদদদাতা এমপি-মন্ত্রীদের তালিকা শেখ হাসিনার টেবিলে

আওয়ামী লীগ সভাপতি পরিষ্কারভাবে বলেছিলেন, যাকে নৌকা প্রতীক দেয়া হোক না কেনো, দলের সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে তার পক্ষে কাজ করতে হবে। যারাই আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বিরুদ্ধে কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং আর কোনদিন তারা নৌকা প্রতীক পাবেন না।

কিন্তু এরকম নিষেধাজ্ঞার পরও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্থানে বিদ্রোহী প্রার্থীদের দাপট লক্ষ্য করা যায় এবং শুধু দাপট নয় দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীরাই প্রাধান্য বিস্তার করেন। এর ফলে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ইতোমধ্যে বেশ কিছু এলাকায় যারা দলের প্রতীকের বাইরে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। কিন্তু ১৯ নভেম্বরের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে আওয়ামী লীগ সভাপতি সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন, যারা দলীয় প্রতীকের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন শুধু তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করলেই হবে না, যারা দলীয় প্রতীক এর বিরুদ্ধে প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে মূল মদদ দিয়েছেন তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে এবং তাদের বিরুদ্ধেও সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পর আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে এক ধরনের বোধোদয় তৈরি হয়েছে এবং তারা মনে করছেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি দলের শৃঙ্খলার ব্যাপারে অত্যন্ত কঠোর। আর এই কঠোর অবস্থানে থাকার কারণে তিনি যেকোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলে শঙ্কা প্রকাশ করছেন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। ইতোমধ্যে কারা কারা বিদ্রোহী প্রার্থীদেরকে মদদ দিয়েছেন তাদের তালিকা প্রণয়নের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই তালিকার মধ্যে রয়েছেন ১৬ জন এমপি। এ ব্যাপারে সাংগঠনিক সম্পাদকদের বিশদ তদন্ত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং তদন্তে যদি দোষ প্রমাণিত হয় তাহলে তাদের কঠিন পরিণতি হবে বলে আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। প্রথমত তাদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হবে এবং কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব যদি সন্তোষজনক না হয় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরের ব্যাপারে যে রকম শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিলো একই শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হতে পারে।

স্বাআলো/এসএ