যশোরে বিপুল উদ্দীপনায় বিজয়ের ৫০ বছর উদযাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের বিপুল উদীপনার মধ্যে দিয়ে যশোরে বিজয় দিবস উদযাপিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিজয়ের ৫০ বছরে এসে বিজয় দিবস উদযাপন করে মানুষ।

সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কালেক্টরেট চত্বরে ৫০ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে বিজয় দিবসের শুভ সূচনা করা হয়। একইসাথে যশোর জেলার সব সরকারি আধা সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর মণিহারের সামনে অবস্থিত বিজয়স্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন জেলা প্রশাসন, বীরমুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন রাজনৈতিক, পেশাজীবী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ হাজারো মানুষ।

সকাল সাতটার দিকে বিজয়স্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন জেলা প্রশাসনের পক্ষে জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান। এরপর যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদের পক্ষে নেতাকর্মীরা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষে সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, বীরমুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে মুক্তিযুদ্ধকালীন বৃহত্তর যশোরের মুজিব বাহিনীর প্রধান আলী হোসেন মনি, যশোর পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার গণি খান পলাশ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের কেন্দ্রীয় কার্যকরী সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা রবিউল আলম, সদর উপজেলার পক্ষে চেয়ারম্যান মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী ও ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল, বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমানসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

সকাল আটটা ৪৫ মিনিটে শামস-উল-হুদা স্টেডিয়ামে বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে প্রদর্শন করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে খেলাধূলা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় মুন্সী মেহেরুল্লাহ ময়দানে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারবর্গ ও বীরমুক্তিযোদ্ধানে সংবর্ধনা দেয়া হয়। জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম ও যশোর পৌরসভার মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা হায়দার গনী খান পলাশ। এসময় বক্তব্য দেন মুক্তিযুদ্ধকালীন বৃহত্তর যশোরের মুজিব বাহিনীর প্রধান আলী হোসেন মনি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের কেন্দ্রীয় কার্যকরী সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা রবিউল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা একেএম খয়রাত হোসেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা মাজহারুল ইসলাম মন্টু, বীরমুক্তিযোদ্ধা রাজেক আহম্মেদ, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম মনির প্রমুখ।

এদিকে, বিকেল চারটায় মুন্সী মেহেরুল্লাহ ময়দানে ১০ হাজার জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে মুজিববর্ষের শপথ পাঠ করবেন যশোরবাসী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিচালনায় সারাদেশে একযোগে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে। বিকেল সাড়ে পাঁচটায় একই স্থানে ‘জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ ও ডিজিটাল প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

.

Author