বানারীপাড়ায় ভূমিখেকোর হাত থেকে মাধ্যমিক বিদ্যালয় রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি

বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি: বরিশালের বানারীপাড়ায় বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় রক্ষার দাবিতে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অবিভাবকরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন ও বরিশাল জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেছে।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে প্রধান শিক্ষক আবু বকার সিদ্দিক তার বক্তৃতায় বলেন, স্কুলের মূল গেট লাগোয়া পশ্চিম পার্শ্বের ১৯৬৬ সাল থেকে বানারীপাড়া ৭নং সদর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের ব্যবহৃত সম্পত্তি। উক্ত ৮ শতক জমি দেয়ার পরে বিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন আরো প্রায় ২-৩ শতক জমি থেকে যায়। ইউনিয়ন পরিষদ ভবনটি ভাঙ্গার ফলে বিদ্যালয়ের উক্ত অংশটি সম্পূর্ণ অরক্ষিত হয়ে পড়ে।

ফলে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিয়ে শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটি ও অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে ছাত্রী-শিক্ষক ও অভিভাবকদের দাবির প্রেক্ষিতে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ উক্ত জায়গাটুকু টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে দেয়। এ বিষয়টি নিয়ে ওই সম্পত্তির মালিক দাবিদার অনুপ কুমার বিশ্বাস মিথ্যা অপপ্রচার ও নানাভাবে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। ২০০৯ সালে একটি প্রতারণা মামলায় এক বছরের সাজা প্রাপ্ত আসামি অনুপ কুমার বিশ্বাস বিভিন্ন সময়ে অনৈতিক সুবিধা লাভের জন্য নিজেকে গুহ পরিবারের সদস্য প্রমাণের ক্ষেত্রে তিনি বিশ্বাস পদবীর সাথে গুহ পদবী ব্যবহার করে আসছেন। ওই সম্পত্তির একাধিক জন মালিকানা দাবি করছে। প্রকৃত মালিক শনাক্ত করে ওই সম্পত্তির যথাযথ মূল্য পরিশোধ করে স্কুল কর্তৃপক্ষ ক্রয় করতে আগ্রহী বলেও তিনি তার বক্তৃতায় বলেন।

মানববন্ধন কর্মসূচির ব্যানারে ও ছাত্রীদের প্ল্যাকার্ডে লেখা হয় ‘ভূমিখেকো অনুপ কুমার বিশ্বাসের হাত থেকে বানারীপাড়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি বাঁচাতে সকলে ঐক্যবদ্ধ হোন’।

বানারীপাড়ায় মাদরাসার অধ্যক্ষ’র বিরুদ্ধে রেজুলেশন না করে গাছ বিক্রির অভিযোগ

এসময় স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক মাকছুদা আক্তার, এডহক কমিটির সদস্য ও সাবেক পৌর কাউন্সিলর রেজাউর রহমান হিরণসহ সকল শিক্ষক, পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধন শেষে বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন কুমার সাহার মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। এর আগে এ বিষয়ে মঙ্গলবার দুপুরে বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

প্রসঙ্গত, বানারীপাড়া পৌরসভার প্রাণকেন্দ্রে শহীদ বুদ্ধিজীবী ড. জ্যোতির্ময় গুহ ঠাকুরতার পৈত্রিক ভিটায় স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের উদ্যোগে নারী শিক্ষা বিস্তারের লক্ষে ১৯৭৭ সালে বানারীপাড়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। শেখ রাসেল স্কুল অব ফিউচারর তালিকাভূক্ত বিদ্যালয়টিতে সাধারণ ও কারিগরি শাখায় প্রায় আট শতাধিক ছাত্রী অধ্যয়নরত রয়েছে।

স্কুলটি কলেজে রূপান্তরের বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন। এদিকে শহীদ বুদ্ধিজীবী ড. জ্যোতির্ময় গুহ ঠাকুরতার পৈত্রিক ভিটায় বানারীপাড়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হলেও ভিপি ‘ক’ তালিকাভূক্ত হওয়ায় (ভিপি কেস নম্বর-৩৪০/১৯৬৯) জমির দানপত্র দলিল নেয়া সম্ভব হয়নি। ফলে সরকারের কাছ থেকে স্কুল কর্তৃপক্ষ দশমিক ৭২ একর সম্পত্তি প্রতিবছর (একসনা) লিজ নিয়ে বিদ্যালয়টি পরিচালনা করে আসছেন।

স্বাআলো/এস

.