ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা

ঢাকা অফিস: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩২ হাজারের বেশি সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা জানুয়ারিতে হচ্ছে না। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে এই পরীক্ষা আয়োজনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। তবে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সেই প্রস্তুতি নিয়েও শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানা গেছে, প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা আয়োজনের সকল প্রস্তুতি শেষ করা হয়েছে। কিছু কাজ বাকি রয়েছে। সেগুলো পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার পর শেষ করা হবে।

সূত্রের তথ্যমতে, জানুয়ারি মাসে পরীক্ষা নেয়ার কথা থাকলেও সেটি সম্ভব হবে না। পরীক্ষা নিয়ে একাধিক সভা করা এখনো বাকি রয়েছে। এছাড়া নতুন বই বিতরণ কার্যক্রম নিয়ে অধিদফতর এবং শিক্ষকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। বই বিতরণ শেষ হওয়া মাত্রই পরীক্ষার প্রস্তুতি নেবেন কর্মকর্তারা।

ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে এইচএসসির ফল

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান তুহিন শুক্রবার (৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বলেন, নতুন বই বিতরণের কর্মসূচি চলায় চলতি মাসে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা আয়োজন করা সম্ভব হবে না।

তিনি আরো বলেন, করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। তবে সংক্রমণ বেড়ে গেলে এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না বলেও জানান তিনি।

যেভাবে নেয়া হবে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা

তথ্যমতে, গত বছর অক্টোবরের শেষ দিকে প্রাথমিকের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এই নিয়োগ পরীক্ষার আবেদন শুরু হয়। আবেদন গ্রহণ শেষ হয় ২৪ নভেম্বর রাতে। এতে আবেদন করেন ১৩ লাখ ৯ হাজার ৪৬১ জন। ফলে প্রতি আসনের বিপরীতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবেন ৪০ জন।

মোট ৩২ হাজার ৭৭টি শূন্য পদে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে ২৫ হাজার ৬৩০ জন এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শূন্যপদে ছয় হাজার ৯৪৭ জনকে নিয়ােগ দেয়া হবে।

স্বাআলো/এস