ছয় দফা দাবি আদায়ে রাস্তায় গদখালীর ফুল চাষী-ব্যবসায়ীরা

ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের ঝিকরগাছায় ছয় দফা দাবিতে মানববন্ধন করেছে ফুলের রাজধানী খ্যাত গদখালীর ফুল চাষী ও ব্যবসায়ীরা।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) সকালে গদখালী বাসস্ট্যান্ডে মানববন্ধনের আয়োজন করে বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটি।

ঘণ্টাব্যাপী চলা মানববন্ধনে বক্তব্য দেন- সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রহিম, নির্বাহী সদস্য মীর বাবরজান বরুণ, ফুল ব্যবসায়ী শামীম রেজা, সেলিম রেজা, রনি আহমেদ, শাহীন আহমেদ প্রমুখ।

বক্তব্যে ছয়দফা দাবি তোলেন বক্তারা। দাবিগুলো হলো- ১. গদখালীতে কেন্দ্রীয় ফুল গবেষণা কেন্দ্রের প্রকল্পটি বারীর প্রস্তাবিত প্রকল্প অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পূর্বক দ্রুত বাস্তবায়ন। ২. ফুল সেক্টরের টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে ফুল গবেষণা কেন্দ্রের প্রকল্পটি যথাযথ বাস্তবায়ন। ৩. ফুলের গুনগত মান উন্নয়ন ও দেশি-বিদেশি বাজার ব্যবস্থা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র ও কোল্ডস্টোরেজের কার্যক্রমটি দ্রুত চালুর ব্যবস্থা। ৪. চুক্তির দোহাই দিয়ে নয়, বাস্তবতার নিরিখে ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্রটি অতি দ্রুত চালু করা। ৫. কৃষকের ফুল ও ফুলের বীজ সংরক্ষণজনিত ক্ষতির কথা চিন্তা করে দ্রুত কোল্ডস্টোরেজ চালুর ব্যবস্থা করা ৬. ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্রের অবকাঠামোগত অবশিষ্ট কার্যক্রম বাস্তবায়নের ব্যবস্থা করা।

ফুল ব্যবসায়ী রনি আহমেদ বলেন- ফুল উৎপাদন, বাজার ব্যবস্থা আধুনিকরণ, ফুল সেক্টরে টেকসই উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় কেন্দ্রীয় ফুল গবেষণা কেন্দ্রের প্রকল্পটির দ্রুত বাস্তবায়নসহ ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র ও কোল্ডস্টোরেজের কার্যক্রম চালু করতে হবে। না হলে আমরা বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়বো।

বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রহিম বলেন, ফুল গবেষণা ফুল সেক্টরের জন্য খুবই প্রয়োজন। দেশের ফুল চাষীরা ফুলের বীজ চারা বিদেশ নির্ভর। এছাড়াও বিদেশে ফুলের নানা মাত্রিক ব্যবহার সেই তুলনায় আমরা অনেক পিছিয়ে আছি।

তিনি আরো বলেন, ২০১৫ সালে কেন্দ্রীয় ফুল গবেষণা কেন্দ্র তৈরি করতে প্রকল্প জমা দেয়া হয়। ২০১৭ সালে প্রকল্পটি তৈরি করে যথাযথ মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়। পরে গত বছরের ২০ ডিসেম্বর পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এক সভায় এ প্রকল্প নিয়ে কিছু অসঙ্গতির অভিযোগ তোলেন কর্মকর্তারা। এতে ফুল গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন ও ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্রটি চালু হওয়া আটকে যায়। প্রকল্পটি যেনো কোনোভাবেই আটকে না যায় সে কারণে তারা রাস্তায় নেমেছেন বলে জানান তিনি।

মানববন্ধনে সহস্রাধিক ফুল চাষী ও ব্যবসায়ী অংশ নেন।

স্বাআলো/এস

.