পৌরসভা নির্বাচন: ঝিকরগাছায় জামানত হারাচ্ছেন ৩৬ প্রার্থী

ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের ঝিকরগাছা পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ৬ প্রার্থীর মধ্যে চারজনের জামানত হারিয়েছেন। এছাড়া নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে ৮২ প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীর মধ্যে ৩২ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এর মধ্যে চারজন নারী কাউন্সিলর ও ২৮ জন কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন। গত ১৬ জানুয়ারি ঝিকরগাছা পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক একেএম আমানুল কাদির টুল্লু নারিকেল গাছ প্রতীকে পেয়েছেন এক হাজার ১০ ভোট। যুবলীগ কর্মী ইমতিয়াজ আহমেদ শিপন মোবাইল প্রতীকে পেয়েছেন ৫৮৭ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী উদ্ভাবক আব্দুল্লাহ আল সাঈদের রেল ইঞ্জিন প্রতীকে এক হাজার ১১ ভোট এবং জাহাঙ্গীর আলমের চামচ প্রতীকে ৮৯ ভোট পড়ায় জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। যদিও তিনি সংবাদ সম্মেলন করে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে সমর্থন করে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোটের ব্যবধানে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন ৮ নম্বর ওয়ার্ড থেকে লড়াই করা তারিকুজ্জামান। তিনি ডালিম প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৮৯৭টি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন বর্তমান কাউন্সিলর গোলাম কাদের বাবলু। তিনি পেয়েছেন ২৯৯ ভোট।

এদিকে কাউন্সিলর সর্বনিম্ন ভোট পেয়েছেন ২নং ওয়ার্ড থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী আফজাল হোসেন চাঁদ। তিনি ডালিম প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৯টি।

করোনা প্রতিরোধে মাঠে নেমেছে প্রশাসন, মাস্ক না পরায় জরিমানা

সংরক্ষিত নারী আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী জামানত হারানো প্রার্থীরা হলেন- ২ নম্বর সংরক্ষিত নারী আসনের বর্তমান কাউন্সিলর রোকেয়া বিশ্বাস (চশমা), ৩ নম্বর আসনের মিনা আক্তার (টেলিফোন), নাজনিন নাহার (জবা ফুল) ও হোসনেয়ারা হ্যাপী (বলপেন)।

সাধারণ কাউন্সিলর পদে জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে- ১নম্বর ওয়ার্ডের আজাদ রহমান (ফাইল কেবিনেট), আব্দুল জব্বার (পাঞ্জাবি), আমিনুর রহমান (ডালিম), আশরাফুল দফাদার (ঢেঁড়স), জাকির হোসেন (ব্ল্যাকবোর্ড)৷ মনিরুজ্জামান খোকন (টেবিল ল্যাম্প), লিন্টু (উটপাখি)।

২ নম্বর ওয়ার্ডে প্রশান্ত বিশ্বাস কাটু (উটপাখি), মৃত্যুঞ্জয় বাগ (ব্ল্যাকবোর্ড), মোর্তুজা রেজা মনি (পানির বোতল), আফজাল হোসেন চাঁদ (ডালিম), ইসমাইল হোসেন (পাঞ্জাবি), মোস্তাফিজুর রহমান মোহন (ফাইল কেবিনেট)।

কপোতাক্ষের তীরে মিললো গরু ব্যবসায়ীর মরদেহ

৩ নম্বর ওয়ার্ডে তোফায়েল আহমেদ (ব্ল্যাকবোর্ড), মোস্তাক আহমেদ (টেবিল ল্যাম্প), ইব্রাহিম হাসান (ফাইল কেবিনেট), তরিকুল ইসলাম (পানির বোতল)।

৪ নম্বর ওয়ার্ডে ইকবাল হোসেন (ডালিম), ৫ নম্বর ওয়ার্ডে জাহাঙ্গীর আলম (টেবিল ল্যাম্প), ফারুক হোসেন (ডালিম), ৬ নম্বর ওয়ার্ডে মিজানুর রহমান (ডালিম), শহিদুল ইসলাম (টেবিল ল্যাম্প), ৭ নম্বর ওয়ার্ডে জিএম নাসির উদ্দিন (ডালিম), ৮ নম্বর ওয়ার্ডে কাজী আরিফুল (পাঞ্জাবি)।

এছাড়াও ৯ নম্বর ওয়ার্ডে আনসার আলী (পানির বোতল), ইলিয়াস হোসেন (উটপাখি), আব্দুর রশিদ (ডালিম), নজরুল ইসলাম বাবুল (পাঞ্জাবি) তাদের জামানত হারিয়েছেন।

ছয় দফা দাবি আদায়ে রাস্তায় গদখালীর ফুল চাষী-ব্যবসায়ীরা

নির্বাচনী বিধিমালা অনুযায়ী, প্রার্থীকে মোট প্রদত্ত ভোটের আট ভাগের এক ভাগ পেতে হবে। অন্যথায় নির্বাচন অফিসে জমা দেয়া তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে যাবে। সেই হিসাবে ঝিকরগাছা পৌরসভা নির্বাচনের চারজন মেয়র ও ৩২ কাউন্সিলর প্রার্থী তাদের জামানত রক্ষা করতে পারেননি।

নির্বাচনে ঝিকরগাছা পৌরসভায় ২৫ হাজার ৯৩৯ ভোটের মধ্যে মোট ভোট পড়েছে ১৭ হাজার ৪৭৪। এর মধ্যে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল পেয়েছেন সাত হাজার ৩৭৫ ভোট। তার নিকটতম প্রার্থী ইমরান হাসান সামাদ নিপুণ পেয়েছেন ছয় হাজার ১২৬ ভোট।

স্বাআলো/এস

.