দুঃসময়ে চাষি-ব্যবসায়ীদের স্বস্তি, রংপুরের আলু যাচ্ছে তিন দেশে

রংপুর ব্যুরো: আলুর মান ভাল থাকায় বিদেশের বাজারে রংপুরের আলুর চাহিদা বেড়েছে। গতবারের মতো এবারো মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও শ্রীলঙ্কায় যাচ্ছে রংপুর অঞ্চলের আলু। গ্রানোলাসহ আরো তিন জাতের আলু বিদেশে যাওয়ায় আলুর দাম নিয়ে এই দুঃসময়ে কিছুটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন চাষি ও ব্যবসায়ীরা।

বিএডিসির এক কর্মকর্তা জানান, আলুর কৃষকের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ার এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্যই বিদেশে আলু রফতানিতে কৃষক এবং রফতানিকারকদের আশান্বিত করেছে। এরই মধ্যে এ অঞ্চল থেকে কমপক্ষে ২০ থেকে ২৫ হাজার মেট্রিক টন আলু রফতানি হয়েছে। এছাড়া বিএডিসিও এবছর আলু রফতানির উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। আর কিছুদিন পরে আলু উত্তোলন হলে তারা সরাসরি বিদেশে পাঠাবে।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, এবার রংপুর অঞ্চলে আলুর আবাদ হয়েছে ৯৭ হাজার হেক্টরে। প্রতি হেক্টরে উৎপাদন ধরা হয়েছে ১৮ মেট্রিক টনের ওপরে।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠান মাসওয়া এগ্রোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ হোসেন জানান, তিনি চলতি জানুয়ারি মাসের প্রথম থেকে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও শ্রীলঙ্কায় গ্রানোলাসহ অন্য কয়েকটি জাতের আলু পাঠাতে শুরু করেছেন। তিনি এ পর্যন্ত ২ হাজার মেটিক টন আলু পাঠিয়েছেন। পুরোপুরি আলুর মৌসুম শুরু হলে আরো পাঠাবেন।

তিনি জানান, রংপুর হতে ৩০ থেকে ৩৫ জন ব্যবসায়ী মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও শ্রীলঙ্কায় এই তিনদেশে আলু পাঠাতে শুরু করেছেন। এপর্যন্ত প্রত্যেক ব্যবসায়ী গড়ে এক হাজার মেট্রিক টন করে আলু পাঠিয়েছেন। মৌসুম শুরু হলে আরো আলু পাঠানো হবে।

এসব আলু দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশি চিপস কোম্পানীগুলো রফতানিকৃত আলু কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। রংপুর ছাড়াও চট্টগ্রাম, বগুড়াসহ বেশ কয়েকটি এলাকার রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান আলু রফতানি করে আসছেন। চাহিদা অনুযায়ী মানসম্পন্ন আলু রফতানি করা গেলে এবছর কয়েক’শ কোটি টাকা বৈদেশিক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব বলে মনে করছেন তারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র সূত্র মতে, রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চূড়ান্ত কথা-বার্তার পর রংপুর, বগুড়া, রাজশাহী, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, নীলফামারী, লালমনিরহাটসহ আশপাশের জেলা থেকে আলু ক্রয় করে প্যাকেটে প্রক্রিয়াজাতের মাধ্যমে তা পাঠানো হয়ে থাকে।

এব্যাপারে রংপুর বিএডিসি উপ-পরিচালক (আলু) আব্দুল হাই জানান, রংপুর, ঠাকুরগাঁও ও জয়পুরহাট জেলা থেকে বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও কৃষকরা বিদেশে গ্রানোলা, বারি-৭ , ইউবিটা জাতীয় আলু রফতানি করতে শুরু করেছেন। বিএডিসি এবার মলয়েশিয়ায় আলু পাঠাবে। এ লক্ষ্যে অন্যন্য প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে।

তিনি জানান, গত বছর বিএডিসি বিদেশে আলু পাঠিয়েছিলো। আলুর মান ভাল থাকায় এবারো বিদেশের বাজারে রংপুরের আলুর চাহিদা রয়েছে। একারণে এবারো মালোশিয়ার পাশাপাশি সিঙ্গাপুর ও শ্রীলঙ্কায় যাচ্ছে রংপুর অঞ্চলের আলু।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
হারুন উর রশিদ সোহেল, রংপুর
ব্যুরো প্রধান