রকেট হামলায় পরিত্যক্ত: ‘বাংলার সমৃদ্ধি’র জন্য ১৯৬ কোটি টাকা চায় বিএসসি

ইউক্রেনে রকেট হামলার পর পরিত্যক্ত ঘোষিত জাহাজ ‘এমভি বাংলার সমৃদ্ধি’র জন্য সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের কাছে ২২.৮ মিলিয়ন ডলার (প্রায় ১৯৬ কোটি টাকা) বিমাদাবি করেছে সমুদ্রগামী জাহাজ পরিচালনাকারী বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন (বিএসসি) কর্তৃপক্ষ।

গত ২ মার্চ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যে ইউক্রেনের অলভিয়া বন্দর চ্যানেলে নোঙর করা অবস্থায় রকেট হামলার শিকার হয় শিপিং কর্পোরেশনের জাহাজ ‘এমভি বাংলার সমৃদ্ধি’। ওই মিসাইল হামলায় জাহাজটির সামনের অংশ ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং জাহাজটিতে কর্মরত থার্ড ইঞ্জিনিয়ার হাদিসুর রহমান মারা যান। পরে জাহাজটির ২৮ জন নাবিককে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়। আজ বুধবার (৯ মার্চ) তাদের দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

বাণিজ্যিক এই জাহাজটি ডেনমার্কের চার্টারার ডেল্টা কর্পোরেশনের সাথে চুক্তি অনুযায়ী ভাড়ায় চলছিলো।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন ছয়টি জাহাজ কেনে- যার মধ্যে তিনটি অয়েল ট্যাংকার এবং তিনটি বাল্ক ক্যারিয়ার। আর এই বাল্ক ক্যারিয়ারগুলোরই একটি হচ্ছে ‘বাংলার সমৃদ্ধি’। চীন থেকে ২০৪ কোটি টাকায় কেনার পর ২০১৮ সালে এই জাহাজটি শিপিং কর্পোরেশনের বহরে যুক্ত হয়।

এর আগে গত ২ মার্চ ‘এমভি বাংলার সমৃদ্ধি’তে রকেট হামলার পরই বাংলাদেশ মার্চেন্ট মেরিন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন দাবি করে, জয়েন্ট ওয়ার কমিটি জায়গাটি ‘যুদ্ধাঞ্চল’ ঘোষণার পরও ওই বন্দরে জাহাজ ছিলো পাঠানো শিপিং কর্পোরেশনেরই ভুল।

তবে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, কেউ কেউ বলছেন যুদ্ধাবস্থায় জাহাজটির যাওয়া ঠিক হয়নি। তবে জাহাজ পাঠানোর ক্ষেত্রে কোনো ভুল হয়নি। কারণ যেসময় জাহাজ গেছে, ওইসময় বন্দরে প্রবেশে কোনো নিষেধাজ্ঞা ছিলো না। এটা মার্চেন্ট জাহাজ হওয়ায় না যাওয়ারও কোনো সুযোগ ছিলো না।

স্বাআলো/এসএ