কালোবাজারে গম বিক্রি, সাবেক খাদ্য গুদাম কর্মকর্তার ১৪ বছর কারাদণ্ড

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের খাদ্য গুদাম থেকে ১৫ লাখ ৪১ হাজার টাকা মূল্যের গম বিক্রি করার অভিযোগে করা দুদকের মামলার রায় দিয়েছেন আদালত। রায়ে সাবেক খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা আব্দুল মতিনকে ১৪ বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

মামলাটি করার ২৭ বছর পর মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে রংপুরের বিভাগীয় স্পেশাল জজ রেজাউল করিম এই রায় ঘোষণা করেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ১৯৯০ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ খাদ্য গুদামে কর্মরত থাকাকালে সাবেক আব্দুল মতিন দুই দফায় দুই লাখ ৪১ হাজার টাকা ও ১৩ লাখ টাকার গম গুদাম থেকে কালোবাজারে বিক্রি করে সব টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এ ঘটনায় দুদক আইনে ১৯৯৫ সালে তার বিরুদ্ধে দুইটি মামলা করা হয়। তদন্ত শেষে দুদক তার বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেয়। দুই মামলায় মোট ২২ জন সাক্ষী আদালতে সাক্ষ্য দেন। সাক্ষীদের সাক্ষ্য ও জেরা শেষে দুই মামলায় সাত বছর করে ১৪ বছর সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

রায় ঘোষণার সময় আসামি আব্দুল মতিন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে পুলিশি পাহারায় রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয়।

দুদকের আইনজীবী হারুনুর রশীদ জানান, মামলাটি দুর্নীতি দমন ব্যুরো থাকা কালে রুজু করা হয়েছিলো। দুই মামলার মধ্যে একটি মামলার বাদী ছিলেন কিশোরগঞ্জ খাদ্য গুদাম নিয়ন্ত্রক আব্দুল ওয়াহেদ এবং অপর মামলার বাদী ছিলেন তৎকালীন দুদকের পরিদর্শক আব্দুস সবুর। দুদক মামলাটি সাক্ষ্য ও দালিলিক প্রমাণ দ্বারা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে।

স্বাআলো/এসএস

.

Author
হারুন উর রশিদ সোহেল, রংপুর
ব্যুরো প্রধান