আত্মহত্যা নয়, শ্রীলঙ্কার এমপিকে পিটিয়ে মেরেছে মানুষ

সোমবার শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোর কাছের নিত্তামবুয়া এলাকায় সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালানোর পর ক্ষমতাসীন দলের এক আইনপ্রণেতার লাশ উদ্ধার করা হয়েছিলো।

শ্রীলঙ্কা পুলিশের বরাত দিয়ে তখন স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছিলো, ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল শ্রীলঙ্কা পদুজেনা পেরামুনা (এসএলপিপি) এর অমরাকীর্থি আথুকোরালা নামের ওই এমপি বিক্ষোভকারীদের সামনে পড়েছিলেন। এক সময় তার গাড়ি আটকানো হলে তিনি বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করেন। গুলিতে দুইজন গুরুতর আহত হন। একপর্যায়ে নিকটস্থ একটি ভবনে আশ্রয় নেন ওই এমপি। আন্দোলনকারীরা ওই ভবনটি ঘিরে ফেলেন। অল্প সময় পর লাশ পাওয়া যায়।

সে সময় পুলিশ জানিয়েছিলো, নিজের রিভলভারের ছোড়া গুলিতেই নিহত হয়েছিলেন এমপি অমরাকীর্থি। তবে পুলিশের ওই দাবি ভুল প্রমাণ করে ফরেনসিক রিপোর্ট বলছে, উত্তেজিত জনতাই তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছিলো।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে লঙ্কাদীপ সংবাদপত্র বলছে, একাধিক আঘাত, হাড় ভেঙে যাওয়া এবং অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণের কারণে এমপির মৃত্যু হয়েছে, তবে তার দেহে কোনো গুলির আঘাত ছিলো না।

অবশ্য ওই প্রতিবেদনে এটা উঠেছে যে এমপির সাথে থাকা তার পুলিশ দেহরক্ষী বন্দুকের গুলিতে মারা গেছেন। কারা গুলি চালিয়েছিলো তা তদন্ত করে বের করতে পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
আন্তর্জাতিক ডেস্ক