শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণের চুক্তি ১৫ লাখে!

শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় পাস করিয়ে দেয়ার নামে পরীক্ষার্থীর সঙ্গে চুক্তি হতো ১০-১৫ লাখ টাকার। এজন্য পরীক্ষার আগেই অগ্রীম দিতে হতো অন্তত দুই লাখ টাকা। এরপর পরীক্ষার্থীকে সরবরাহ করা হতো হিডেন স্পাই ওয়্যারলেস কিট। যার মাধ্যমে বাইরে থেকে সরবরাহ করা হতো প্রশ্নপত্রের সমাধান। সম্প্রতি এমন একটি চক্রের মূলহোতাসহ চারজনকে আটক করেছে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) দুপুরে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আটককৃতদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে র‍্যাব। এসময় র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

আটককৃতরা হলেন চক্রের মূলহোতা- ইকবাল হোসেনসহ (৪২), রমিজ মৃধা (৩০), নজরুল ইসলাম (৫০) ও মোদাচ্ছের হোসেন (৬২)।

সংবাদ সম্মেলনে কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, গ্রেফতারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, প্রথমে তারা বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি নিয়োগ পরীক্ষা সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে। পরে ওই নিয়োগ পরীক্ষা নেয়ার স্থান ও পরীক্ষার গার্ড সম্পর্কে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে। এসময় চক্রের অন্য সদস্যরা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের সরকারি/বেসরকারি চাকরিপ্রত্যাশীদের খুঁজে বের করে ১০-১৫ লাখ টাকার বিনিময়ে পরীক্ষায় পাশ ও চাকরি পাইয়ে দেয়ার নিশ্চয়তা দেয়ার কথা বলে তাদের প্রলোভন দেখাতো। আগ্রহী পরীক্ষার্থীদের ডিজিটাল ডিভাইসগুলো দিয়ে এর ব্যবহার বিধি প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রাথমিকভাবে এক-দুই লাখ টাকা জামানত হিসেবে গ্রহণ করতো। অবশিষ্ট টাকা চাকরি পাওয়ার পর পরিশোধ করবে মর্মে চুক্তি করতো। এভাবে তারা বিগত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন চাকরিপ্রার্থীর কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়।

র‍্যাব জানায়, প্রতারক চক্রটির মূলহোতা ইকবাল হোসেন ২০০৮ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়। সে নিজ এলাকায় শিক্ষকতা করার সময় ২০১৫ সালে একই এলাকার অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী আলতাফ হোসেনের সঙ্গে পরিচয়ের সূত্রে তার কাছ থেকে সরকারি/বেসরকারি বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণের নিশ্চয়তা দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার বিষয়টি রপ্ত করে। পরে করোনা মহামারির সময় আলতাফ হোসেন মারা গেলে গ্রেফতার ইকবাল হোসেন প্রতারক চক্রটি পরিচালনা শুরু করে। তার বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা ও বেশ কয়েকটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) রয়েছে।

স্বাআলো/এস

.

Author
ঢাকা অফিস