পদ্মা সেতু নিয়ে প্রশংসা করে বহিষ্কারের মুখে বিএনপি নেতা

‘যুগ যুগ অপেক্ষার পর আজ দক্ষিণ পশ্চিম বাংলার স্বপ্ন পুরণ হলো, আলহামদুলিল্লাহ। আমাদের টাকায় আমাদের স্বপ্নের পদ্মা সেতু। কথাটি সত্য কিন্তু একজন উদ্যোক্তা লাগে। আর সেটা করল প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা’ ফেসবুকে এমন পোস্ট দিয়ে এখন দল থেকেই বহিষ্কার হতে পারেন চট্টগ্রামের এক বিএনপি নেতা।

শনিবার (২৫ জুন) চট্টগ্রাম নগরীর আকবরশাহ থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক ফেসবুকে ওই পোস্ট দেন। পোস্টটি মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

এমন ঘটনায় ‘বিব্রত’ আকবরশাহ থানা বিএনপির পক্ষ থেকে ওই পোস্টের জন্য ফজলুল হককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়েছে, আপনি দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজে লিপ্ত থাকার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেছে। আপনি সোশাল মিডিয়ায় (ফেসবুক) পদ্মা সেতু নিয়ে যে পোস্ট দিয়েছেন তা ভাইরাল হয়েছে। তৃণমূল বিএনপির নেতাকর্মীদের অনুভূতিতে আঘাত লেগেছে এবং ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

ওই নোটিশে ফজলুলের বিরুদ্ধে কেনো সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তা জানতে চেয়েছে থানা বিএনপি।

এদিকে এ ঘটনা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তুমুল সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। কেউ কেউ বলছেন, রাজনৈতিক দলগুলো সবসময় প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে ব্যস্ত। কোন রাজনৈতিক দল ভালো কিছু করলে সেটাকে ভালো বলার সংস্কৃতি এদেশের রাজনীতিতে সেভাবে গড়ে ওঠেনি। এটিও তার ব্যতিক্রম নয়।

যদিও চট্টগ্রাম নগরীর আকবরশাহ থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মঈন উদ্দীন চৌধুরী মাঈনু বলেছেন, পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে বিএনপি সরকারের আমলে। ফজলুল সেটা উল্লেখ করেনি। যার কারণে তৃণমূলের ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। তৃণমূলের ক্ষোভকে প্রশমিত করার জন্য তাকে (শোকজ) করা হয়েছে।

শনিবার (২৫ জুন) পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনে বিএনপি নেতা ফজলুল হকের দেয়া সেই পোস্টে তিনি লিখেছেন, যুগ যুগ অপেক্ষার পর আজ দক্ষিণ পশ্চিম বাংলার স্বপ্ন পুরোন হলো, আলহামদুলিল্লাহ। ছোট কালে বরিশাল থেকে ঢাকা আসতাম তখন খুব ভয়ে থাকতাম কখন লঞ্চ পদ্মা নদী পারি দিবে। রাত ১১টা ১২টার সময় খালাসিরা ডেকে বলতো লঞ্চ এখন পদ্মা পারি দিবে, সকলে আল্লাকে ডাকুন দোয়া কালাম পড়ুন ছোটরা ঘুমিয়ে যাও। তখন ডরে খাতা মুরা দিয়ে শুয়ে থাকতাম। তুফান বাতাসের শো শো আওয়াজে ভয়ে কেঁদে দিতাম, এই বুজি লঞ্চ ডুবে গেলো। রাত ২ট ৩টার সময় খালাসি ডাকতো চাঁদপুর চাঁদপুর। খাতার তলের থেকে মাথা বের করে দেখতাম চাঁদপুরের বিদ্যুৎ বাতি দেখা যায়। আবার ঢাকা থেকে বাড়ী আসতে একই কষ্ট। বাড়ী এসে মুরুব্বিদের সাথে কষ্টের কথা বলতাম। আমার বড় চাচাকে বললাম, আচ্ছা জাদু পদ্মা নদীর উপদিয়া একটা পোল বানাইয়া দিতে পারে না? জাদু বললো অ স্বপ্নের কথা। আমি অর্থ না বুঝে চলে গেলাম।

সেই পোস্টে তিনি আরো লিখেছেন, আজ ৪৫ বছর পর (আমার হিসাবে) দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলার স্বপ্ন পুরণ হলো। সেটা পোল নয়, স্বপ্নের বহু মুখি পদ্মা সেতু। আজ ২৫ জুন ২০২২ ইং উদ্বোধন হলো স্থলপথের যাতায়াত। আমাদের টাকায় আমাদের স্বপ্নের পদ্মা সেতু। কথাটি সত্য কিন্তু একজন উদ্যোকতা লাগে। আর সেটা করল প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
চট্টগ্রাম ব্যুরো