কেশবপুরে শ্রমিকলীগের কমিটি অবৈধ, বলছেন জেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক

গত মঙ্গলবার (২৮ জুন) যশোর জেলা জাতীয় শ্রমিকলীগ অন্তর্গত কেশবপুর উপজেলা শাখার যে ৩৩ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে তার কোনো বৈধতা নেই। কমিটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও অবৈধ। সংগঠনের শৃঙ্খলা বিনষ্ট করার জন্য একটি ষড়যন্ত্রকারী চক্র অবৈধভাবে কমিটি ঘোষণা করেছে।

বুধবার (২৯ জুন) যশোর জেলা শ্রমিকলীগের পক্ষ থেকে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জবেদ আলী ও সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিনের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়। কেশবপুর উপজেলা শ্রমিকলীগের নেতাকর্মীদের বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তীতে জানানো হয়, কেশবপুর উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের অনিয়মতান্ত্রিকভাবে কমিটির যারা অনুমোদন দিয়েছেন তাদের অনুমোদন দেয়ার কোনো ইখতিয়ারই নেই। জাতীয় শ্রমিকলীগ যশোর জেলা শাখার ৩ নং সহ-সভাপতি সাইফুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসাবে এবং যুগ্ম-সাধারণ আসাদুজামান বাবলু ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসাবে অনুমোদনে স্বাক্ষর করেছেন। সাইফুর রহমান সংগঠনের ৩নং সহ-সভাপতি ও আসাদুজামান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে অসিন অবস্থায় কোনো অবস্থায় জেলার অন্তর্গত কোনো কমিটি ১৫ (গ) ধারা মোতাবেক অনুমোদন দেয়ার
ইখতিয়ার নেই।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, আসাদুজামান বাবলু জাতীয় শ্রমিকলীগের গঠনতন্ত্রর ১৭(গ) ধারা, ১৮(খ) ধারা ও গঠনতন্ত্রের ২০ ধারার অপব্যাখ্যা এবং গঠনতন্ত্রের ২৪নং ধারা দীর্ঘদিন যাবৎ সরাসরি লঙ্ঘন করে চলেছেন। জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি আজিজুর রহমানের মৃত্যুর পর গত ২২ জুন তিনি অবৈধভাবে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দাবি করে জাতীয় শ্রমিককলীগ যশোর শাখার কার্যনির্বাহী কমিটির সভা করেন। মুষ্টিমেয় কয়েকজন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের নিয়ে সভা করেন। সেই সভায় জেলা শ্রমিকলীগের ৩ নং সহ-সভাপতি সাইফুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে ঘোষণা করেন।

সাইফুৃর রহমান ও আসাদুজামান বাবলুর সকল কর্মকাণ্ড অবৈধ। অবৈধ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দ্বারা ঘোষিত জাতীয় শ্রমিকলীগ কেশবপুর উপজেলা শাখার আহবায়ক কমিটি বাতিল করা হলো। সেই সাথে তাদেরকে অবৈধ কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য আহবান জানানো হলো। পুণরায় এ ধরণের কর্মকাণ্ড বা বিশৃঙ্খলা করার চেষ্টা করলে সংগঠনের উল্লেখিত ধারা মোতাবেক তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্বাআলো/এস

.

Author
নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর