জোয়ারের পানি বৃদ্ধিতে চিন্তিত নিম্নঅঞ্চলের মানুষ

পটুয়াখালীর গলাচিপায় জোয়ারের পানি বৃদ্ধিতে চিন্তিত নিম্ম আয়ের মানুষ। উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ কারণে দিনে দুইবার জোয়ারের পানিতে ডুবে যাচ্ছে নদী সংলগ্ন এলাকাগুলো। গৃহবন্দি হয়ে পড়ছে এসব অঞ্চলের মানুষ। গত তিন দিন পূর্বে থেকে পূর্ণিমা ও উজানের পানির চাপে সবগুলো নদীর পানি বৃদ্ধি পেলেও বন্যার কোনো প্রভাব নেই বলে জানিয়েছেন পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ড। গোলখালী ইউনিয়নে ওয়াপদা ভেরিবাধের কাজ চলমান রয়েছে।

বুধবার (১৩ জুলাই) গলাচিপা খেয়াঘাট, ফেরিঘাট, পানপট্টি লঞ্চ ঘাট, বদনাতলী ল ঘাটসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থান জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। গলাচিপা ফেরিঘাটে দুপারে জোয়ারের সময় যানবাহন ফেরিতে উঠতে পারছে না। ফলে দূরবর্তী স্থান থেকে ট্রাকে করে আনা কাচামাল পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা। এছাড়া সময় মত মালামাল না আসায় বাজারে বিভিন্ন পন্য সংকটের আশঙ্কা রয়েছে। এতে ব্যবসায়ীরা ক্ষতির মধ্যে পরবেন বলে জানিয়েছে ব্যবসায়ীরা। রামনাবাদ নদী, বুড়া গৌরঙ্গ নদী, আগুণমুখা, তেতুলিয়া নদীর দুই পারের নিম্ন এলাকা জোয়ারের তলিয়ে যাওয়ায় চিন্তিত সাধারণ মানুষ। অনেকের বাড়ি ঘরে পানি প্রবেশ করছে। কৃষক ও মৎস্য চাষীরাও বিপাকে পরেছেন। নদীর পানি আরো বেড়ে গেলে ঘের তলিয়ে ঘেরের মাছ চলে যেতে পারে নদীতে। তাছাড়া ক্ষেতে অধিক পানি থাকলে কৃষিকাজও ব্যাঘাত ঘটবে বলে কৃষকরা জানান।

স্বাআলো/এসএস

.

Author
গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি