মাগুরায় ইউপি নির্বাচনী বিরোধের জেরে কৃষক খুন

মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার শ্রীকোল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের নির্বাচনকে ঘিরে সাবেক বর্তমান দুই ইউপি সদস্যের বিরোধের জেরে আলাউদ্দিন শেখ (৫৩) নামে এক কৃষক খুন হয়েছে। সে ওই ইউনিয়নের খর্দরোহুয়া গ্রামের চয়েন শেখের ছেলে।

এলাকাবাসী জানায়, সর্বশেষ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ইউপি সদস্য ফরিদুল ইসলাম মোল্যা শ্রীকোল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী আবু বক্কার মোল্যার কাছে হেরে যান। এ ঘটনার পর থেকেই উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিলো। তারই ধারাবাহিকতায় সোমবার (১১ জুলাই) বিকালে গ্রামের মধ্যে কাজীবাড়ি মোড় এলাকায় শ্রীকোল ইউনিয়নের বর্তমান প্যানেল চেয়ারম্যান আবু বক্কার মোল্যাকে একাকি পেয়ে সাবেক ইউপি সদস্য ফরিদ মোল্যার লোকজন কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। এ ঘটনার পর বক্কার মোল্যার সমর্থকরা প্রতিপক্ষের ওপর হামলা চালালে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এ সময় অন্তত ১৫টি বাড়ি ভাংচুরের পাশাপাশি আলাউদ্দিন শেখ, গোলাম রসূল মোল্যা, আবু তাহের, ওসমান গণি, অনজিলা বেগম, আসমা খাতুন ও রেহেনা বেগম, আতিয়ার রহমান খান এবং আকিদুল ইসলাম প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়।

সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে আলাউদ্দিন শেখকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে মঙ্গলবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। কৃষিকর্মের পাশাপাশি তিনি গবাদি পশু ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। সংঘর্ষে আহত প্যানেল চেয়ারম্যান আবু বক্কার মোল্যা, আকিদুল ইসলাম এবং আতিয়ার রহমানকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদের মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

হামলায় আহত শ্রীকোল ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আবু বক্কার মোল্যার ছোট ভাই জাকির হোসেন বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকলেও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমাদের অংশগ্রহণ ছিলো না। কিন্তু এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে এবারই প্রথম আমার ভাই নির্বাচন করে বিজয়ী হন। এ ঘটনার পর থেকেই পরাজিত প্রার্থী ফরিদ মোল্যা এবং তার সহযোগীরা আমাদের ওপর অত্যাচার চালিয়ে আসছে। সর্বশেষ কোনো প্রকার উষ্কানি ছাড়াই তারা হত্যার উদ্দেশ্যে আমার ভাইয়ের ওপর হামলা চালায়। তিনি এখন মৃত্যু শয্যায়।

এ বিষয়ে সাবেক ইউপি মেম্বর ফরিদ মোল্যার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এদিকে আলাউদ্দিন শেখের মৃত্যুর পর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো মুহূর্তে আরো বড় ধরণের সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন সাধারণ গ্রামবাসী।

মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরুল হাসান জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া সংঘর্ষে জড়িত ১২ জনকে আটক করেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে বলেও তিনি জানান।

স্বাআলো/এসএস

.

Author
লিটন ঘোষ জয়, মাগুরা
জেলা প্রতিনিধি