অভয়নগরে শ্বাসরোধ করে স্ত্রী ও দুই মেয়েকে হত্যা, স্বামী আটক

যশোরের অভয়নগর উপজেলায় শ্বাসরোধ করে স্ত্রী ও দুই মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। আজ শুক্রবার (১৫ জুলাই) দুপুরে উপজেলার চাঁপাতলা গ্রামে জহিরুল ইসলাম ওরফে বাবু (৩৫) তাদের শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। পুলিশ জহিরুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে।

নিহত তিনজন হলেন- জহিরুল ইসলামের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বিথী (৩২) এবং দুই মেয়ে সুমাইয়া (৯) ও সাফিয়া (২)।

জহিরুল ইসলাম যশোর সদর উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের মশিয়ার রহমান বিশ্বাসের ছেলে।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার দুপুরে জহিরুল ইসলাম স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বিথী এবং দুই মেয়ে সুমাইয়া ও সাফিয়াকে নিয়ে অভয়নগর উপজেলার সিদ্দিপাশা গ্রামের শ্বশুরবাড়ি থেকে যশোর সদর উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের বাড়িতে ফিরছিলেন। দুপুর দেড়টার একটু পরে তারা উপজেলার ভৈরব নদের নগর খেয়াঘাট পার হয়ে চাঁপাতলা গ্রামে পৌঁছান। আগে থেকে পারিবারিক বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটি চলছিলো। চাঁপাতলা গ্রামের বাগানের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় জহিরুল ইসলাম স্ত্রী ও দুই মেয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। এরপর মরদেহ বাগানের মধ্যে ফেলে রেখে তিনি বাড়িতে চলে যান। বাড়ি যেয়ে তিনি পরিবারের সদস্যদের কাছে স্ত্রী ও দুই মেয়েকে হত্যার কথা জানান। বিকেল ৫টার দিকে তার পরিবারের সদস্যরা যশোর সদর উপজেলার বসু্ন্দিয়া পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেন। এরপর সন্ধ্যা ৬টার দিকে ফাঁড়ি থেকে পুলিশ যেয়ে জহিরুল ইসলামকে গ্রেফতার করে। রাত ৮টা পর্যন্ত মরদেহ ঘটনাস্থলেই পড়ে ছিলো।

সিলিন্ডার বিস্ফোরণে যশোরে ক্লিনিকে অগ্নিকাণ্ড

বসু্ন্দিয়া পুলিশ ফাঁড়ির এসআই সাইফুল ইসলাম বলেন, জহিরুল ইসলামের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বিথী এবং দুই মেয়ে সুমাইয়া ও সাফিয়াকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন। তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভয়নগর থানা পুলিশের হাতে তাকে হস্তান্তর করা হয়েছে।

রাত ৮টার দিকে অভয়নগর থানার ওসি এ কে এম শামীম হাসান বলেন, স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বিথী এবং দুই মেয়ে সুমাইয়া ও সাফিয়াকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন জহিরুল ইসলাম। আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে নিয়ে আমরা ঘটনাস্থলে রওনা দিয়েছি।

স্বাআলো/এস

.

Author
নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর