সকালে কারাগারে, বিকেলেই জামিন পেলেন কাজী গ্রুপের এমডি

সকালে চট্টগ্রাম কারাগারে ঢুকে বিকেলেই জামিনে বেরিয়ে গেলেন কাজী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তবে অপর তিন পরিচালক জামিন পাননি। দীপ্ত টিভি ও কাজী ফার্মস ছাড়াও এই গ্রুপের বেশ কয়েকটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে।

সোমবার (১৮ জুলাই) সকালে চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক জহিরুল কবির চারজনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। ওই চারজন হলেন কাজী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী জাহেদুল হাসান, পরিচালক কাজী জাহিন হাসান ও কাজী রাবেত হাসান এবং চিফ অপারেটিং অফিসার কাজী উরফি আহমেদ। শেষের তিনজনই কাজী জাহেদুল হাসানের ছেলে।

সাবেক প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি ও তার ছেলের বিরুদ্ধে দীপ্ত টেলিভিশনে সংবাদ পরিবেশন করায় ছয় বছর আগে মামলাটি দায়ের করা হয়েছিলো।

জানা গেছে, কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়ার পর বিকেলে কাজী গ্রুপের পক্ষের আইনজীবী নতুন করে একটি পিটিশন দায়ের করেন। এরপর চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক জহিরুল কবির ওই পিটিশন আমলে নিয়ে শারীরিক অসুস্থতা বিবেচনায় কাজী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী জাহেদুল হাসানকে জামিন দেন। তবে কারাগারে যাওয়া কাজী গ্রুপের অপর তিন পরিচালকের জামিন নিয়ে মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে চট্টগ্রামের সাইবার ট্রাইব্যুনালে হাজির হওয়ার শর্তে গত ৫ জুন উচ্চ আদালত তাদের ছয় সপ্তাহের জামিন দিয়েছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের ১৬ ও ২২ মার্চ টিভি চ্যানেলটিতে মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি ও তার ছেলে মুজিবর রহমানকে জড়িয়ে ‘মিথ্যা সংবাদ’ পরিবেশন করা হয়। এতে মন্ত্রী ও তার ছেলের সম্মানহানি হওয়ার অভিযোগ তুলে ২০১৬ সালের ৫ এপ্রিল তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ (২) ধারায় চকবাজার থানায় মামলাটি করা হয়।

মামলার বাদী সানোয়ারা গ্রুপের ব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর আলম। মামলায় দীপ্ত টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী জাহেদুল হাসান, পরিচালক কাজী জাহিন হাসান, চিফ অপারেটিং অফিসার কাজী উরফি আহমেদ ও চট্টগ্রাম অফিসের প্রতিবেদক রুনা আনসারীকে আসামি করা হয়।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
চট্টগ্রাম ব্যুরো