সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র ষড়যন্ত্র করছে: নড়াইলে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান এমপি বলেছেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের চেষ্টা কঠোর অপরাধ। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অপরাধে যেই অপরাধী হোক তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দুপুর আড়াইটায় নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া এলাকায় দুস্কৃতিকারীদের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির, বাড়িঘর ও অগ্নিসংযোগে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র পান ব্যবসায়ী গোবিন্দ সাহার বাড়িঘর পরিদর্শন কালে একথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী ওই চক্র দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে অগ্নিসংযোগ, হামলাসহ নানা অরাজকতা সৃষ্টি করে দেশকে সবসময় অস্থিতিশীল পরিবেশে রাখতে চায়। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বন্ধন অটুট রাখার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও মন্দিরের পুরোহিতদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের ভয় পাবার কোনো কারণ নেই। গত ১৫ জুলাইয়ের ঘটনায় আপনারা যারা ক্ষতির শিকার হয়েছেন সবাইকে পূর্নবাসন করা হবে এবং যেসব মন্দির ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেসব মন্দির পুন:নির্মাণ করে দেয়া হবে।

দিঘলিয়ার ঘটনা পরবর্তী পদক্ষেপে নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার ভূমিকা তুলে ধরে মন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেন, আপনাদের এমপি আমাদের গর্ব মাশরাফি দৃঢ়তার সঙ্গে উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছেন। আপনাদের পাশে এসে সাহস যুগিয়েছেন তিনি।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এমপি বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে যে পরাজিত বিপদগামী শক্তি, জঙ্গিবাদী ও মৌলবাদী গোষ্ঠী জড়িত ছিলো আজ তারাই শেখ হাসিনার সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে এবং দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করে এদেশকে সাম্প্রদায়িক দেশে পরিণত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। বাংলাদেশে সকল সম্প্রদায়ের লোক সম্প্রীতির বন্ধনে অটুট থেকে যাতে একত্রে বসবাস করতে পারে সে লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ সরকার সবসময় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী এদেশকে শক্তিশালী ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি দৃঢ়তার সঙ্গে এ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। সরকার শক্ত অবস্থানে আছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট হয় এমন যেকোনো অপতৎপরতা সরকার দৃঢ়তার সঙ্গে মোকাবেলা করবে। বাংলাদেশ ঐতিহ্যগতভাবেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। নিরপরাধ মানুষের ওপর সংঘবদ্ধ হামলা, বাড়িঘর-দোকানপাট ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ উপাসনালয়ে হামলা যারা করেছে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।

নড়াইলের এই ঘটনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী, বাংলাদেশ বিরোধী। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে জনগণের নিকট প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

এ সময় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট বীরেন শিকদার, অসীম কুমার উকিল, মাশরাফি বিন মুর্তজা, পংকজ নাথ, পঞ্চানন বিশ্বাস, নড়াইলের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলুসহ স্থানীয় জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দসহ প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর বিকেল সাড়ে ৫টায় মন্ত্রী, সংসদ সদস্যদের উপস্থিতিতে লোহাগড়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষার্থে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন ধর্মের ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব, প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত যে, গত ১৫ জুলাই লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া সাহাপাড়ার কলেজছাত্র আকাশ সাহার ফেসবুকে ধর্ম নিয়ে কটূক্তির ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ তুলে সাহাপাড়ার গোবিন্দ সাহা, তরুণ সাহা, দিলীপ সাহা, পলাশ সাহার বাড়িসহ বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ভাঙচুর করে তৌহিদী জনতা। এর মধ্যে গোবিন্দা সাহার বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

ভাঙচুর আগুনের ঘটনায় লোহাগড়া থানার এসআই মাকফুর রহমান বাদী হয়ে লোহাগড়া থানায় ১৭ জুলাই ২৫০ জনকে অজ্ঞাতনামা করে মামলা দায়ের করে (মামলা নং-৯)। পুলিশ এ ঘটনায় এপর্যন্ত ব্যবসায়ী রাসেল মৃধা (৩৮), সাইদ শেখ (২৫০), রেজাউল শেখ (৪০), মাসুম বিল্লাহ ( ৩২) ও কবির গাজীসহ (৩২) মোট ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে। এদের মধ্যে পাঁচজনকে তিন দিনের রিমান্ড দেয়া হয়েছে।

অপরদিকে সাহা পাড়ার অশোক সাহার ছেলে কলেজ ছাত্র আকাশ সাহা ফেসবুকে মহানবী (সা:)-কে নিয়ে কটুক্তির অভিযোগে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে দাঙ্গা সৃষ্টির অপরাধ সংক্রান্ত মামলা হয়েছে। ১৬ জুলাই লোহাগড়া থানায় মামলাটি দায়ের করেন দিঘলিয়া গ্রামের সালাহ উদ্দিন কচি সরদার। ১৬ জুলাই রাতে খুলনা থেকে আকাশ সাহাকে গ্রেফতার করে। ১৭ জুলাই বিকেলে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোরশেদুুল আলমের আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লোহাগড়া থানার এসআই মাকফুর রহমান সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করলে বিচারক শুনানি শেষে তিনদিনের মঞ্জুর করেন।

স্বাআলো/এস

.

Author
সুজয় বকসী, নড়াইল