আশুরায় নাশকতার শঙ্কা নেই

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেছেন, আশুরায় নাশকতার কোনো আশঙ্কা নেই। তবে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে পুলিশ ও গোয়েন্দা তৎপরতা অব্যাহত থাকবে।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) বিকেলে পুরান ঢাকার হোসেনি দালানে পবিত্র আশুরা উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ইতোমধ্যে আয়োজক কমিটির সঙ্গে আমরা আলাদা আলাদা বৈঠক করেছি। যেসব স্থানে আশুরা পালন করা হয় তার আশপাশে চেকপোস্ট ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে। থাকবে গোয়েন্দা তৎপরতাও। এছাড়া যেসব স্থানে তাজিয়া মিছিল বের হবে সেখানে ডগ স্কোয়াড ও বোম ডিস্পোজাল ইউনিট থাকবে। যেসব রাস্তা দিয়ে মিছিল হবে সেসব রাস্তা নিরাপত্তা চাদরে ডাকা থাকবে।

পবিত্র আশুরা ৯ আগস্ট

তিনি বলেন, হোসেনি দালানের আশপাশের এলাকার ছাত্রাবাস ও মেসগুলো আশুরার সময় নজরদারির আওতায় নিয়ে আসা হবে। সেগুলোতে নিয়মিত তল্লাশি চালানো হবে। গুজব এড়াতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও নজরদারি বাড়ানো করা হবে। কেউ উল্টা-পাল্টা কোনো বিভ্রান্তি ছড়ালে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, লক্ষাধিক মানুষ তাজিয়া মিছিলে অংশগ্রহণ করেন। এজন্য কিছু কিছু রাস্তায় যানজটের সৃষ্টি হয়। আশা করি সবাই এটা স্বাভাবিকভাবে মেনে নেবেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঘটনা টাঙ্গাইলে ঘটলেও আসামিদের গ্রেফতার করতে ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগ তৎপর রয়েছে। বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের মতো ঘটনা রোধে প্যানিক বাটন বসানোর কথা থাকলেও ঢাকার কিছু কিছু বাসে তা বসানো হয়েছে। এর পেছনে যে খরচ তা বহনে বাস মালিকরা রাজি না হওয়ায় সব বাসে বসানো সম্ভব হয়নি।

আরেক প্রশ্নের জবাবে ডিএমপি কমিশনার বলেন, যে সমস্ত এলাকায় নারী শ্রমিকরা বেশি কাজ করে সে সমস্ত এলাকার বাসের চালক-হেলপারের ছবিসহ জীবনবৃত্তান্ত ও বাসের নম্বর লিখে রাখলে অপরাধীদের ধরতে সহজ হবে।

স্বাআলো/এস