জাতীয় শোক দিবস: যশোরে অর্ধশতাধিক স্থানে এমপি নাবিলের গণভোজ বিতরণ

জাতীয় শোক দিবসে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ সদর উপজেলার অর্ধশতাধিক স্থানে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও গণভোজ বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগদান করেছেন। শোক দিবসের সকাল থেকে রাত অবধি দলীয় নেতাকর্মীদের আয়োজনে তিনি এসব কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন।

শহরের চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড মোড়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর আন্দোলনের ফসল হলো বাংলাদেশ। তাই বঙ্গবন্ধু আর বাংলাদেশ একই মুদ্রার এপিঠ আর ওপিঠ। বঙ্গবন্ধুকে বাদ দিয়ে কখনো বাংলাদেশকে নিয়ে চিন্তা করা যায় না। বাংলাদেশ যতদিন টিকে থাকবে বঙ্গবন্ধু ততদিন বেঁচে থাকবেন।

তিনি আরো বলেন, পাকপ্রেমীরা শেখ হাসিনার উন্নয়ন মেনে নিতে পারছেন না। দেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রায় তারা সব সময় ধ্বংস চায়। বাংলাদেশকে পিছনে ফেলে ভিক্ষুকের জাতি বানানোই তাদের বাসনা। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার পরিকল্পনাকে তারা নস্যাৎ করতে চায়। ওইসব দেশবিরোধী চক্রকে সমূলে উপড়ে ফেলতে আওয়ামী লীগকে আরো শক্তিশালী হতে হবে। সংগঠন শক্তিশালী থাকলে কোন ষড়যন্ত্র টিকবে না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, বীর মুক্তিযোদ্ধ একে খয়রাত হোসেন ও মেহেদী হাসান মিন্টু, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সেতারা খাতুন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক আবু মুসা মধু, শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আবু সেলিম, জেলা যুবলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শেখ রফিকুল ইসলাম রফিক, সদস্য কেরামত আলী মোল্লা, প্রচার সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর শেখ জাহিদ হোসেন মিলন, জেলা মহিলালীগের সভাপতি লাইজুজ্জামান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি জাবের হোসেন জাহিদ, সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহজান কবির শিপলু, আহসানুল করিম রহমান, বর্তমান সহ-সভাপতি রুহুল কুদ্দুস, শহর মুক্তিযুদ্ধ মুঞ্চের সভাপতি আব্দুল কাদের, সাধারণ সম্পাদক তছিকুর রহমান রাসেল প্রমুখ।

কাজী নাবিল আহমেদ সকালে নিজ বাসভবনে বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া মাহফিল করেন। তারপর শহরের গরীবশাহ সড়কে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন।

এরপর জেলা প্রশাসনের শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেন। সেখান থেকে বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় শোক দিবসের আলোচনা সভা ও গণভোজ বিতরণে অংশ নেন।

দড়াটানা মোড়ে ইজিবাইক শ্রমিকলীগের আলোচনা সভা ও গণভোজ বিতরণে তিনি প্রধান অতিথি ছিলেন। সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুলের সঞ্চলনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান মিন্টু, জেলা শ্রমিকলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জবেদ, সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন ও পৌর কাউন্সিলর শেখ জাহিদ হোসেন রিপন। সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি আবু হাসান টাংকু।

এছাড়াও শহরের জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ এস এম হুমায়ন কবির কবুর আয়োজনে ঘোপ নওয়াপাড়া রোড়ে, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সামির ইসলাম পিয়াসের আয়োজনে চেম্বার অব কমার্সের সামনে, শহর মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক তছিকুর রহমান রাসেলের আয়োজনে মোল্লাপাড়ায়, দড়াটানা বটতলা মোড়ে কাউন্সিলর মোকছিমুল বারী অপু, মণিহারের সামনে কাউন্সিলর সাহিদুর রহমান রিপন, শংকরপুর জিরো পয়েন্ট মোড়ে কাউন্সিলর আসাদুজ্জামান বাবুল, কারবালা রোড়ে কাউন্সিলর রাজিবুল আলম, গাড়িখানায় জেলা যুবমহিলা লীগের সভাপতি মঞ্জুন্নাহার নাজনীন সোনালীর আয়োজনে ছাড়াও বিভিন্ন স্থানে দোয়া মাহফিল ও গণভোজ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ কাজী নাবিল আহমেদ।

পরে বিকালে সদর উপজেলার নওয়াপাড়া, রামনগর, নরেন্দ্রপুর, কচুয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদেন কাজী নাবিল আহমেদ।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর